বড়সড় সাফল্য! ৫৮১ জন জঙ্গি নিকেশ করেছে সেনা

ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: ২০১৫ সালে জঙ্গি নিকেশের খতিয়ান তুলে ধরল লোকসভা৷ বুধবার সংসদের অধিবেশনে এক প্রশ্নের জবাবে এই সংক্রান্ত খতিয়ান তুলে ধরেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী সুভাষ ভামরে৷ এদিন তিনি বলেন ২০১৫ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত মোট ৫৮১ জন জঙ্গিকে নিকেশ করেছে ভারতীয় সেনা৷ এর মধ্যে ২০১৫ সালে ১০৮ জন, ২০১৬ সালে ১৫০ জন, ২০১৭ সালে ২১৩ জন ও ২০১৮ সালের ২২ শে জুলাই পর্যন্ত ১১০ জন জঙ্গিকে খতম করা সম্ভব হয়েছে৷

এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে এই তথ্য তুলে ধরেন ভামরে৷ তিনি আরও বলেন গুলির লড়াইয়ে ভারতীয় সেনার তরফে ৪৪ জন সেনা জওয়ান ও ২৫ জন বিএসএফ জওয়ান শহিদ হয়েছেন ২০১৫ সাল থেকে৷
ভামরে এদিন স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের তথ্য অনুযায়ী সেনার ব্যয় বরাদ্দেরও খতিয়ান তুলে ধরেন৷ তথ্য বলছে ২০১৬ সালে ২,১৬,০৩১.৩০ মিলিয়ন অর্থ খরচ হয় চিনা সেনাবাহিনী খাতে৷ ২০১৭ সালে ২,২৮,২৩০.৭০ মিলিয়ন খরচ হয় চিনা সেনাবাহিনীর জন্য৷ সেখানে ভারতীয় সেনাবাহিনীর জন্য ২০১৬ সালে বরাদ্দ ছিল ৫৬,৬৩৭.৬০ মিলিয়ন ও ২০১৭ সালে ৬৩,৯২৩.৭০ মিলিয়ন৷

এরআগে, জানুয়ারি মাসে সেনা জানায়, ভারতীয় সেনা প্রতি তিন দিনে একজন করে জওয়ানকে হারায়৷ গত তেরো বছর ধরে এই গড়ই বজায় রয়েছে৷ ২০০৫ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত যে খতিয়ান ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে তুলে ধরা হয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে প্রতি তিনদিন গড়ে একজন করে ভারতীয় জওয়ান শহিদ হয়েছেন৷ বিগত বছর গুলিতে মোট ১৬৮৪ জন জওয়ান তাদের প্রাণ হারিয়েছেন৷ পাকিস্তানের সাথে গুলিবিনিময়, জঙ্গি দমন অভিযান, সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানগুলিতে শহিদ হয়েছেন এইসব বীর জওয়ানরা৷

- Advertisement -

জানুয়ারির ১৫ তারিখ এই রিপোর্ট প্রকাশ করে ভারতীয় সেনা৷ ২০১৬ সালে এই সংখ্যাটা ছিল ৮৬, ২০১৫ সালে ছিল ৮৫৷ দেখা গিয়েছে যত বছর পিছিয়ে যাওয়া হচ্ছে, তত মৃত্যুর সংখ্যা কমছে ভারতীয় জওয়ানদের৷ ২০১৪ সালে ৬৫, ২০১৩ সালে ৬৪, ২০১২ সালে ৭৫, ২০১১ সালে ৭১, ২০১০ সালে ১৮৭, ২০০৯ সালে ১০৭, ২০০৮ সালে ৭১, ২০০৭ সালে ২২১, ২০০৬ সালে ২২৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন যুদ্ধবিরতি সংঘর্ষে৷ ২০০৫ সালে সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় প্রাণ গিয়েছে জওয়ানদের৷ সংখ্যাটা ৩৪২৷

Advertisement ---
---
-----