মুকুলের জন্যই এনডিএ-তে আসছেন ৮ কং বিধায়ক

শিলং: নির্বাচনের আগে বড়সড় ধাক্কা কংগ্রেসে৷ মেঘালয়ে ক্ষমতাসীন দলে ভাঙন৷ সূত্রের খবর, অন্তত ৮ কংগ্রেস বিধায়ক দলত্যাগ করতে চলেছেন৷ শুক্রবারই তাঁরা যোগ দেবেন এনডিএ শিবিরে৷ আগামী মার্চেই নির্বাচন৷

জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েই দলত্যাগ করছেন এই আট বিধায়ক৷ তবে বিজেপি-তে সরাসরি যোগ দিচ্ছেন না তাঁরা৷ কংগ্রেস ছেড়ে এনপিপি (ন্যাশনাল পিপলস পার্টি) দলে নাম লেখাতে চলেছেন৷

এনপিপি-র প্রতিষ্ঠাতা লোকসভার প্রাক্তন অধ্যক্ষ পি.এ সাংমা৷ ২০১৬ সালে তাঁর প্রয়াণ হয়৷ প্রথমে কংগ্রেস ছেড়ে এনসিপি-তে চলে গিয়েছিলেন তিনি৷ পরে সেই দল ছেড়ে তৈরি করেন এনপিপি৷ মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন তিনি৷

সূত্রের খবর, কংগ্রেসের দলত্যাগী বিধায়কদের মনোভাবে স্পষ্ট তাঁরা কোনভাবেই মুখ্যমন্ত্রী মুকুল সাংমাকে মেনে নিতে পারছেন না৷ দল ছাড়ছেন অভিজ্ঞ কংগ্রেস নেতা তথা রাজ্যের প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রী আর. লিংডো৷ পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেন, আমরা মনে করছি কংগ্রেসের থেকে বেশি গণতন্ত্র আছে এনপিপি-তে৷

এদিকে এনপিপি প্রধান ডব্লিউ.খারলুকি জানান, কংগ্রেস নেতাদের দলত্যাগের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই৷ আরও কয়েকজন দলত্যাগ করবেন৷

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানাচ্ছে, মেঘালয়ে কংগ্রেস বড়সড় বিপর্যয়ের মুখে পড়তে চলেছে৷ সূত্রের খবর, কংগ্রেস ছেড়ে স্থানীয় রাজনৈতিক দল পিপিসি-তে যাচ্ছেন আরও কয়েকজন কংগ্রেস নেতা৷

৬০ সদস্যের মেঘালয় বিধানসভা৷ বর্তমানে ক্ষমতাসীন দল কংগ্রেসের বিধায়ক সংখ্যা ৩০ জন৷ বিরোধী আসনে থাকা বিজেপির দখলে আছে মাত্র দুটি আসন৷ আগামী বিধানসভা নির্বাচনে মেঘালয়ে পদ্মফুল ফোটাতে মরিয়া বিজেপি৷ সংগঠনের উত্তর পূর্বাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ নেতা তথা অসমের স্বাস্থ্য ও শিক্ষামন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মাকে দেওয়া হয়েছে বিশেষ দায়িত্ব৷

----
-----