বাণিজ্যের নামে LoC দিয়েই অস্ত্র আসছে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হাতে: এনআইএ

শ্রীনগর: কখনও পাথর ছোঁড়া কিংবা কখনও গুলির লড়াইয়ে উত্তপ্ত উপত্যকা৷ এই সমস্ত ঘটনার পিছনে রয়েছে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হাত৷ এই সমস্ত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের আরও ইন্ধন যোগাচ্ছে পাকিস্তান৷ সীমান্তে দুই দেশের বাণিজ্যের মাধ্যমেই পাকিস্তান থেকে ভারতে সেই টাকা এবং অস্ত্রশস্ত্র সরবরাহ করা হচ্ছে৷ এনআইএ-র পেশ করা একটি চার্জশিটে এমনটাই উল্লেখ করা হয়েছে।

চার্জশিটেই আরও উল্লেখ করা হয়েছে, অস্ত্রশস্ত্র সরবরাহের পাশাপাশি পাকিস্তান থেকে টাকা এসে পৌঁছছে দেশে৷ আর সেই টাকাতেই দেশে ভারত বিরোধী কার্যকলাপ চালাচ্ছে তারা৷

উল্লেখ্য, এই ঘটনায় প্রায় ১২,৭৯৪পাতার একটি চার্জশিট পেশ করেছে এনআইএ৷ এই চার্জশিটে গোয়েন্দা সংস্থা উল্লেখ করেছে, পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি, পরিচয়হীন পাক আধিকারিক এবং বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা এই অস্ত্রশস্ত্র এবং টাকা লেনদেনের কাজে যুক্ত রয়েছে৷ হিজবুল মুজাহিদিন গোষ্ঠীর সঙ্গে যুক্ত জঙ্গিরাই এনআইএ-র চার্জশিটের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে৷

- Advertisement -

উপত্যকায় বিচ্ছিন্নতাবাদীরা কিভাবে আর্থিক দিক থেকে শক্তিশালী হয়ে উঠছে, এই নিয়ে তদন্তের পর জানা যাচ্ছে, গত ২০০৮সাল থেকেই সীমান্ত দিয়ে চলছে লেনদেনের কাজ৷ তদন্ত থেকে জানা যাচ্ছে, সীমান্ত দিয়ে পাকিস্তান থেকে আসা পণ্যদ্রব্য বিক্রি করছে ভারতের ব্যবসায়ীরা৷ সেই পণ্যদ্রব্য বিক্রির পর প্রাপ্ত টাকা পৌঁছে যাচ্ছে হুরিয়াত নেতাদের হাতে৷ আর তাতেই উপত্যকায় বিচ্ছিন্নতার সৃষ্টি করছে তারা৷ হুরিয়ত নেতাদের পাশাপাশি হাওয়ালা অপারেটররাও উপত্যকায় বিচ্ছিন্নতার সৃষ্টি করছে৷

এনআইএ-র এই চার্জশিটেই উল্লেখ রয়েছে হাফিজ সইদ এবং সৈয়দ সালাহুদ্দিনের নামও৷ এছাড়াও বেশ কিছু হুরিয়ত নেতাদের নাম উল্লেখ রয়েছে এই চার্জশিটে৷ এদের মধ্যে রয়েছে আফতাব হিলালি ওরফে শহিদ উল ইসলাম, আয়াজ আকবর খান্ডে, ফারুক আহমেদ দার ওরফে বিট্টা ক্যারাটে, নইম খান, আলতাফ আহমেদ শাহ, রাজা মেহরাজুদ্দিন কালওয়াল, বসির আহমেদ ভাট ওরফে পির সইফুল্লা৷ এছাড়াও চার্জশিটে উল্লেখ রয়েছে একজন ব্যবসায়ী জাহুর আহমেদ ওয়াতালির নাম, উল্লেখ রয়েছে দুই স্টোন পেল্টারের নামও৷

Advertisement
----
-----