স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ফ্রেন্ডশিপ ক্লাবে বন্ধুত্বের হাতছানি দিয়ে যৌনতা কিনবা ম্যাসাজ পার্লারের শারীরিক সুখের পিছনে যৌনতা এখন পুরনো। ভ্রমণ সংস্থার আড়ালে মধুচক্রের পর্দা ফাঁস করল কলকাতা পুলিশ।

চারু মার্কেট থানা এলাকার সুলতান আলম রোড। এই রাস্তার উপরেই একটি বহুতলের চতুর্থ তল ভাড়া করেছিল ডলি ঘোষ নামের এক ব্যক্তি। ভ্রমণ সংস্থা চালানোর জন্য বাড়ি ভাড়া নিচ্ছে বলেই জানিয়েছিল সে।

কিন্তু, কারবার শুরু হতে যে চিত্র দেখা গেল তা ঠিক আর পাঁচটা ভ্রমণ সংস্থার মতো নয়। ভ্রমণ সংস্থায় মহিলা কর্মী থাকতেই পারে। তাই বলে উত্তেজক পোশাক, চড়া মেক আপ করা মহিলাদের দেখে সন্দেহ হয়েছিল এলাকাবাসীর। ভ্রমণ সংস্থার কর্মীরা এমন হয় কি! মনে প্রশ্ন জেগেছিল স্থানীয়দের।

একইসঙ্গে যারা পর্যটক হিসেবে আসছিল তাদের চালচলনও ঠিক স্বাভাবিক নয়। এই ধরনের নানা অসঙ্গতি চোখে পড়ার পর স্থানীয়রাই খবর দেয় পুলিশে।

সেই সূত্রে খবর পেয়ে আসরে নামের পুলিশ। নজরদারি চালানো হয় বাড়িটির উপরে। অবশেষে মঙ্গলবার অভিযানে নামে কলকাতা পুলিশ। এক জন দালাল এবং তিন জন যৌন কর্মী সহ মোট পাঁচ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তালিকায় ক্রেতাও রয়েছে যে মধুর লোভে ওই বহুতলে এসেছিল।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে যে সমগ্র কারবারটাই চলছিল দালালের মাধ্যমে। দালালেরাই ধরে নিয়ে আসতো ক্রেতা বা কাস্টমার। টাকা পয়সার যাবতীয় লেনদেন তারাই করতো। নিজের কমিশন নিয়ে বাকিটা দালালই যৌনকর্মী এবং অন্যান্যদের দিতো। বেশ কিছুদিন ধরে চলছিল যৌনতার এই কারবার। যদিও শেষ রক্ষা আর হল না। অবশেষে পড়তেই হল পুলিশের জালে। বুধবার ধৃতদের আলিপুর আদালতে তোলা হবে।

----
--