এইডস প্রতিরোধে পিল ব্যবহার করছেন বাংলার যৌনকর্মীরা

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রোজ সকালে একটি করে পিল৷ তা হলেই আর কাস্টমারের বায়নাক্কা অনুযায়ী কন্ডোম ব্যবহারে না বললেও অসুরক্ষিত থেকে যাবেন না কোনও যৌনকর্মী৷ এবং, এ ভাবেই এ বার বাংলা জুড়ে এইডস প্রতিরোধের কাজে এগোচ্ছে দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটি৷

কন্ডোম ব্যবহারের মাধ্যমেও এইডস প্রতিরোধের কাজ করে চলেছে দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির অধীনে থাকা পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন যৌনপল্লি৷ তবে, এখনও পর্যন্ত সোনাগাছি সহ এ রাজ্যে ওই সব যৌনপল্লির ৯৫ শতাংশ যৌনকর্মী কন্ডোম ব্যবহার করছেন৷ দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির মুখ্য উপদেষ্টা, ডাক্তার স্মরজিৎ জানার কথায়, ‘‘১৯৯২-তে কন্ডোম ব্যবহারের উপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছিল৷ তখন মাত্র তিন শতাংশ যৌনকর্মী কন্ডোম ব্যবহার করতেন৷ এখন সব যৌনপল্লি মিলিয়ে গড়ে ৯৫ শতাংশ যৌনকর্মী কন্ডোম ব্যবহার করছেন৷’’

আরও পড়ুন: কাজের লোভ দেখিয়ে নাবালিকাকে যৌনকর্মী বানালো দাদারা

- Advertisement -

কিন্তু, ১০০ শতাংশ যৌনকর্মী কন্ডোম ব্যবহার করবেন, এমন সম্ভব নয় বলেই মনে করছে দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটি৷ কারণ হিসাবে জানানো হয়েছে, অনেক সময় কাস্টমারই কন্ডোম ব্যবহার করতে রাজি হন না৷ যার জেরে, কাস্টমারদের খুশি করতে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই কন্ডোম ব্যবহার করতে পারেন না সংশ্লিষ্ট যৌনকর্মীরা৷

শুধুমাত্র তাই নয়৷ বয়স হয়ে গিয়েছে, এমন যৌনকর্মীরাও অনেক সময় কন্ডোম ব্যবহার করতে পারেন না৷ কারণ, উপার্জন আরও কম হওয়ার আশঙ্কা৷ অন্যদিকে, ফিমেল কন্ডোম ব্যবহারেও সেভাবে সফল হতে পারেনি দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির অধীনে থাকা রাজ্যের ওই সব যৌনপল্লি৷

এই বিষয়ে ডাক্তার স্মরজিৎ জানা বলেন, ‘‘দাম বেশি হওয়ার কারণে ফিমেল কন্ডোমের ব্যবহার বাড়ানো সম্ভব হয়নি৷’’ বিশেষজ্ঞরাও এমন বলেন যে, ফিমেল কন্ডোম ব্যবহারের মাধ্যমেই স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিষয়ে অনেক বেশি সুরক্ষিত থাকা সম্ভব৷ আর, এই ধরনের পরিস্থিতির মধ্যেই রাজ্য জুড়ে এ বার পিল ব্যবহারের উপর জোর দিচ্ছে দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটি৷ ডাক্তার স্মরজিৎ জানা বলেন, ‘‘২০১৬-র জানুয়ারি থেকে সোনাগাছিতে এই পিলের ব্যবহার শুরু হয়েছে৷ দুর্বারের অধীনে থাকা রাজ্যের ৫০টি যৌনপল্লিতে এ বার এই পিলের ব্যবহার শুরু হচ্ছে৷ এই পিল ব্যবহারের মাধ্যমে যৌনকর্মীরা এ বার এইডস প্রতিরোধের কাজও করবেন৷’’

আরও পড়ুন: চড়া ‘রেটে’ সোনাগাছিতে বিকোচ্ছে পুজোর রাত

এই পিল অর্থাৎ, Pre-Exposure Prophylaxis (PrEP)-এর মাধ্যমে কীভাবে এইডস প্রতিরোধের কাজে এগিয়ে যেতে পারবেন যৌনকর্মীরা? দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির মুখ্য উপদেষ্টা বলেন, ‘‘রোজ সকালে একটা করে এই পিল খেতে হবে৷ তা হলে কোনও কাস্টমার কন্ডোম ব্যবহারে রাজি না হলেও কোনও যৌনকর্মী অসুরক্ষিত থেকে যাবেন না৷’’ একই সঙ্গে ডাক্তার স্মরজিৎ জানা বলেন, ‘‘এইডস প্রতিরোধের জন্য সরকারি প্রকল্পে যাতে এই পিলের ব্যবহার শুরু হয়, তার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আমরা আবেদন জানাব৷’’

এইচআইভিতে আক্রান্ত নন অথচ সংক্রমণের সম্ভাবনা রয়েছে, এমন ক্ষেত্রে প্রতিরোধের জন্য এই পিল ব্যবহার করা হয় বলে জানানো হয়েছে৷ সোনাগাছির যৌনকর্মীদের জন্য এই পিলের ব্যবস্থা এখন করছে দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটি৷ তবে, আগামী দিনে এই পিলের ব্যবস্থা করবে যৌনকর্মীদের জন্য এবং যৌনকর্মীদের পরিচালিত সোনাগাছির সমবায় ব্যাংক ঊষা অর্থাৎ, ঊষা মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড৷

Advertisement ---
---
-----