লখনউ: জোট করে লোকসভায় লড়ার ঘোষণা করেছেন মায়া অখিলেশ৷ পরদিনই কংগ্রেসের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে উত্তরপ্রদেশে ৮০টি আসনেই লড়বে তাদের প্রার্থীরা৷ অগত্যা, উপায় না দেখে ‘হাত’ ধরলেন মুলায়মের ভাই শিবপাল যাদব৷ প্রগতিশীল সমাজবাদী পার্টি(লোহিয়া) প্রধান এদিন জানিয়ে দেন, আগামী লোকসভা আসনে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট গড়ছেন তারা৷ সপা-বসপা জোটকে টাকার জোট বলেও কটাক্ষ করেন শিবপাল যাদব৷

প্রশ্ন হল কংগ্রেস তো জানিয়েই দিয়েছে তারা সবকটি আসনেই লড়বে৷ তাহলে কেন হঠাৎ কংগ্রেসের হাত ধরলেন শিবরাজ৷ রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা, সমাজবাদী পার্টির অভ্যন্তরীন রাজনীতিতে অখিলেশের চরম বিরোধী ছিলেন কাকা শিবপাল৷ ফলে বাইপো দলের প্রধান হতেই দল তাঁকে বহিষ্কার করে৷ পরে প্রগতিশীল সমাজবাদী পার্টি(লোহিয়া) নামে নতুন দল গঠন করেন তিনি৷ তবে একা লড়ে আগামী লোকসভায় সাফল্য আনার মতো শক্তি সে দলের নেই৷ ফলে জোট তাকে করতেই হত৷

অন্যদিকে, শিবপাল বিজেপি বিরোধী৷ কোনও মতেই পদ্ম শিবিরের সঙ্গে জোট গড়তে পারবেন না তিনি৷ রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এই পরিস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবেই তার একমাত্র ভরসা রাহুল গান্ধীর কংগ্রেসই৷ তবে হাত শিবিরের তরফে এপ্রসঙ্গে কিছু বলা হয়নি৷ মনে করা হচ্ছে রাজ্যের সব জায়গায় কংগ্রেসের সংগঠন জোরদার নয়৷ সেই সব আসনের মধ্যে বেশ কয়েকটি তারা শিবপালকে ছাড়তে পারেন৷ লড়ে হেরে যাওয়ার থেকে জোট সঙ্গীকে সে আসন ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টি কংগ্রেসের নজরে বলে মনে করা হচ্ছে৷

কংগ্রেসকে পাশে পেতে চাইলেও এদিন বুয়া-বাবুয়া জোট নিয়ে সরব হন শিবপাল যাদব৷ তিনি বলেন, ‘‘বিজেপি বিরোধীরা জিতুক৷ কিন্তু উত্তরপ্রদেশের বিরোদী জোট স্বার্থের জোট৷ টাকার স্বার্থে এই জোট হয়েছে৷’’

একদিকে গেরুয়া শিবির৷ অন্যদিকে মায়া-অখিলেশ ও কংগ্রেস-শিবপাল জোট৷ প্রশ্ন এই জোটের গুঁতোয় বোট রাজনীতিতে সুবিধে হয়ে যাবে না তো বিজেপির?

--
----
--