স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সমাপতন!

দু’জনকে সাকুল্যে ১১জন করে রক্ষী ঘিরে থাকত৷ তাঁর মধ্যে ১ কিংবা ২ জন কম্যান্ডো৷ অন্যজনকে ১০জন কম্যান্ডো সহ ৫৫ জন রক্ষী ঘিরে রাখতেন! বুধবার সন্ধে থেকে তিনজনই একই সারিতে নেমে এলেন৷ তাঁদের প্রত্যেকের জন্য বরাদ্দ হল ৫ জন কম্যান্ডো-সহ ২২জন রক্ষী৷

Advertisement

আরও পড়ুন: এই বসন্তে গেরুয়া রং মাখতে আপত্তি নেই মুকুল-পুত্রের

নিরাপত্তার নিরিখে এদিনই ‘ডিমোশন’ হল কলকাতার মেয়র তথা দমকল মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়ের৷ জেড প্লাস থেকে নেমে এলেন জেড-ক্যাটাগরিতে৷ অন্যদিকে এক ধাক্কায় প্রমোশন পেলেন পুর ও নগরোন্নয়ন ফিরহাদ হাকিম ও যুব কল্যাণ-ক্রীড়া মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস৷ ওয়াই থেকে পদোন্নতি পেয়ে উঠলেন জেড-ক্যাটাগরিতে৷ স্বভাবতই, পঞ্চায়েত ভোটের মুখে সরগরম রাজ্য রাজনীতি থেকে শাসকের অন্দরমহল৷

একটি টিভি চ্যানেলে এবিষয়ে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে চোখে জল চলে এসেছে কলকাতার প্রধান নাগরিকের৷ অন্যদিকে নিরাপত্তার পদোন্নতিতে মুখের হাসি চওড়া হয়েছে ফিরহাদ-অরূপের৷ রাজনৈতিক মহল কিন্তু এই ঘটনাকে অদ্ভুত সমাপতন হিসেবেই দেখছে৷ কারণ, রাজ্য রাজনীতিতে এই রাজনৈতিক নেতাদের সম্পর্ক অম্ল-মধুর৷ ফলে দলের মধ্যে কোনও সমীকরণের জেরেই কি এই সিদ্ধান্ত, তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে৷

আরও পড়ুন: রাজ্যের বাইরে ভারতীর লুকানো সম্পত্তির খোঁজে রাজুকে ফের জেরা গোয়েন্দাদের

তবে দলীয় সূত্রের খবর, ক’দিন আগে পর্যন্ত দলের প্রথমসারির তালিকায় ছিলেন শোভন৷ নারদে নাম জড়ানোর পরও কলকাতার মেয়রকে বিধানসভা ভোটের পর দমকল বিভাগ ‘উপহার’ দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেদিনও আনন্দাশ্রু ঝরেছিল শোভনের চোখে৷ এদিনও ঝরল চোখের জল৷ আর সেই চোখের জল কেন ঝরল, সেই প্রশ্নের উত্তর জানতে উৎসুক সবাই৷

আরও পড়ুন: সৌজন্যের নজির গড়ে বুদ্ধর ফ্ল্যাট সংস্কারে উদ্যোগী মমতা

যদিও বিতর্ক এড়িয়ে জয়েন্ট সিপি (হেড কোয়াটার্স) সুপ্রতিম সরকারের সাবধানী মন্তব্য, ‘‘ভিভিআইপিদের নিরাপত্তা দেখার জন্য একটা রিভিউ কমিটি আছে৷ তারা যেমন বলে, তেমনই নিরাপত্তা দেওয়া হয়৷’’ পুলিশকর্তা যাই বলুন না কেন, কলকাতার প্রধান নাগরিকের নিরাপত্তার ডানা ছাঁটাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল ভবন থেকে রাজপথে চায়ের দোকানে কার্যত তুফান উঠছে৷ ‘ঝড়’ কোথায় গিয়ে থামে, সেদিকেই তাকিয়ে রাজ্য রাজনীতিকরা৷

আরও পড়ুন: উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়ন হচ্ছে না! দলেরই প্রাক্তন মন্ত্রীর মন্তব্যে অস্বস্তিতে তৃণমূল

----
--