এই বসন্তে গেরুয়া রং মাখতে আপত্তি নেই মুকুল-পুত্রের

দেবযানী সরকার, কলকাতা: প্রকাশ্যে বাবার ‘কপালে’ জুটেছে ‘বেইমানে’র তকমা৷ সেই সূত্রেই দলের অন্দরে তিনি এখন অঘোষিতভাবে ‘নজরবন্দি’৷ কারও কারও চোখে তিনি ‘বিজেপি’, বাবার ‘সোর্স৷ কিন্তু তাতে কী এসে যায়৷ রাত পোহালেই ঘরে-বাইরে আবির খেলায় মাতবেন মুকুল রায়ের পুত্র৷ গেরুয়া আবির মাখতে কোনও অসুবিধা নেই বলেও জানিয়েছেন তিনি৷ শুভ্রাংশু রায়ের এই মন্তব্য কীসের ইঙ্গিত, তা নিয়েই এখন জোর চর্চা শুরু হয়েছে৷

মঙ্গলবার বারাসতে রাজ্যের প্রশাসনিক সভায় গিয়ে ঢুকতে না পেরে কার্যত একরাশ অপমান নিয়ে ফিরে যেতে হয়েছে রায় পরিবারের একমাত্র আদুরে সন্তানকে৷ তবু খোশ মেজাজেই রয়েছেন বীজপুরের বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়৷ বুধবার থেকেই দোলযাত্রার জন্য নানা পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছেন তিনি৷ kolkata24x7.com-কে তিনি জানিয়েছেন, ছেলে-মেয়েদের সঙ্গেই চুটিয়ে রং খেলবেন তিনি৷ তার পর বন্ধুবান্ধব, দলের অনুগামীদের সঙ্গে আরও এক প্রস্থ রং খেলবেন তিনি৷ তার পর বাড়িতে ফিরে দুপুরে জমিয়ে খাওয়াদাওয়া৷ তার পর বিকেল হলেই শুরু হবে আবির খেলা৷ অকপটে বললেন, ‘‘বাবার মতো আমারও লাল রঙের প্রতি অ্যালার্জি আছে৷ ওটা বাদে অন্য যে কোনও রং মাখতে আমার আপত্তি নেই!’’

যদি বলা হয়, বাবার (মুকুল রায়) পায়ে গেরুয়া আবির দিতে! দেবেন? কয়েক মুহূর্তে থেমে তৃণমূল কংগ্রেসের দাপুটে বিধায়কের জবাব, ‘‘অসুবিধে কোথায়? ওটাও তো একটা রং৷ আমরা বাড়িতে মূলত হার্বাল আবির ব্যবহার করি৷ বাবা-মায়ের পায়ে আবির দিয়ে প্রণাম করি৷ এটাই আমাদের বাঙালিদের রীতি৷ যদি দেখি বাড়িতে গেরুয়া আবির থাকে তা হলে বাবার পায়ে তা দিতে আমার কোনও অসুবিধে নেই৷’’ স্বভাবতই, ফের জানতে চাওয়া হয, নীল, হলুদ, সুবুজের পাশাপাশি যদি গেরুয়া আবির খেলতে চান আপনার সঙ্গীরা, খেলবেন? এবারও তাঁর জবাব, ‘‘শুনুন, এটা একটা উৎসব৷ মানুষের আন্তরিকতার থেকে বড় কিছু হয় না৷ ওরা লাল বাদে যে রং-ই আনবে আমার খেলতে অসুবিধে নেই৷’’

- Advertisement -

বাংলার রাজনীতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল অধিকাংশ মানুষই জানেন, গত বছরের দুর্গা পুজোর পঞ্চমীর দিনই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে ২০ বছরের সম্পর্ক চুকিয়ে দিয়েছিলেন শুভ্রাংশুর জন্মদাতা৷ মাস ঘুরতেই দিল্লির সদর দফতরে অমিত শাহর কাছ থেকে গেরুয়া নামাবলি গায়ে চড়িয়েছিলেন কাঁচরাপাড়ার পোড়খাওয়া রাজনীতিক মুকুল রায়৷ তার পরে গঙ্গা দিয়ে যত জল না বয়ে গিয়েছে, তার থেকে বেশি ঝড় বয়ে গিয়েছে বিজেপি নেতা-বাবার পুত্র শুভ্রাংশু রায়ের উপর দিয়ে৷

ঘনিষ্ঠ মহল তো বটেই প্রকাশ্যেও ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গিয়েছে শুভ্রাংশু রায়কে৷ এমনকী নিজের প্রাণহানির আশঙ্কাও প্রকাশ করেছেন তিনি৷ একাধিকবার বলেছেন, ‘‘আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই রয়েছি৷ তবু দলের একাংশ পরিকল্পিতভাবে আমার নামে মিথ্যে কুৎসা রটাচ্ছে৷’’ কিন্তু, দলের কাছে এখনও তিন ঘরের চৌকাঠের ওপারেই রয়েছেন৷ মুকুল-পুত্রের গেরুয়া আবিরে দোল খেলার এই ইচ্ছা আগাম কোনও কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে কি না, তা নিয়ে কৌতুহল দানা বাঁধছে বিভিন্ন মহলে৷

Advertisement
---