লোকসভা ভোটের আগে ফের সিঙ্গুর মামলা কলকাতা হাইকোর্টে

কলকাতা:  ফের সিঙ্গুর মামলা কলকাতা হাইকোর্টে। লোকসভা ভোটের আগে ফের সিঙ্গুর জট। জমি ফেরত চেয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা সিঙ্গুরের কয়েকজন কৃষকের।

অভিযোগ, সুপ্রিম কোর্টের বেঁধে দেওয়া সময়সীমা পেরিয়ে গেলেও চাষযোগ্য জমি তারা এখনও হাতে পাননি। এবং বর্তমানে এই চাষ যোগ্য জমির প্রক্রিয়া কত দূর এগিয়েছে রাজ্য সরকার। সেই বিষয়েও অন্ধকারে রয়েছেন সিঙ্গুরের জমি দাতারা। রাজ্য সরকারকে একাধিকবার জানতে চাওয়া হলেও রাজ্য সরকার সুনির্দিষ্ট কোনও উত্তর দেয়নি। সেই কারণেই কলকাতা হাইকোর্টের দারস্থ হয় সিঙ্গুরের জমিদাতারা।

- Advertisement -

আজ শুক্রবার বিচারপতি পথিক প্রকাশ বন্দ্যোপাধ্যায়ের এজলাসে এই সংক্রান্ত মামলার শুনানি হয়। সেই মামলায় মামলাকারীদের পক্ষের আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশকে আলোকপাত করে আদালতে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পরেও এখনও পর্যন্ত চাষযোগ্য জমি হাতে পাননি সিঙ্গুরের জমিদাতারা। এমনটাই সওয়ালে জানান বিকাশবাবু। দীর্ঘক্ষণ এই সওয়াল-জবাব চলে কলকাতা হাইকোর্টে।

শুনানিতে আদালতের প্রশ্ন, হঠাত কেন কলকাতা হাইকোর্টে সিঙ্গুর মামলা এল? এমনকি এতদিন পর কেন এই মামলা দায়ের করা হচ্ছে তা নিয়েও প্রশ্ন তোলে আদালত। এরপরে রাজ্য সরকারের কাছে যে চিঠি মারফত জানতে চাওয়া হয়েছিল তার তথ্য সমেত আদালতে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন বিচারপতি বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী ২রা ফেব্রুয়ারির মধ্যে তা আদালতে হলফনামা আকারে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালে সিঙ্গুরের জমি টাটাদের ফিরিয়ে দিতে নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট। একইসঙ্গে রাজ্য সরকারকে জমি চাষযোগ্য করার নির্দেশও দেয় বেঞ্চ। ঐতিহাসিক রায়কে স্বাগত জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, জোর করে জমি অধিগ্রহণে সায় নেই তাঁর। এরপর সিঙ্গুরের জমিতে টাটাদের অর্ধসমাপ্ত নির্মাণ গুঁড়িয়ে জমিকে চাষযোগ্য করার প্রক্রিয়া শুরু হয়। চাষিদের জমি ফিরিয়েও দেয় রাজ্য সরকার। কিন্তু বর্তমানে জমিদাতাদের অভিযোগ, সেই সময় পেরিয়ে গেলেও চাষযোগ্য জমি হাতে তারা এখনও পর্যন্ত পাননি।