নতুন রানি পেল ইউ এস ওপেন

নিউইর্য়ক: ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালে নবম বাছাই ভেনাস উইলিয়ামসকে হারিয়ে বড় সড় অঘটন ঘটিয়েছিলেন সোলানে স্টিফেন্স৷ এবার ফাইনালেও চমক দিলেন মার্কিনি তরুণী৷ আক্রমণত্মক ঢঙেই ম্যাডিসন কি’জকে এক ঘন্টার লড়াইয়ে স্ট্রেট সেটে হারিয়ে কেরিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম খেতাব জিতলেন অবাছাই তারকা৷ স্টিফেন্সের হাত ধরেই নতুন রানি পেল ইউ এস ওপেন৷

চার সপ্তাহ আগে প্রকাশিত ব়্যাঙ্কিংয়ে ৯৫৭ নম্বরে ছিলেন স্টিফেন্স৷ ওয়াইল্ড কার্ড এন্ট্রি না পেলে টুর্নামেন্ট খেলাই হত না তাঁর৷ সেই তরুণী আজ গ্র্যান্ড চ্যাম্পিয়ন৷

আরও পড়ুন- রানিদের কোচ হয়ে গেলেন শ্রীজেশদের ‘হেডস্যার’

কেরিয়ার প্রথম মেগা ফাইনালে সোলানেকে এক মুহূর্তের জন্যেও আনকোড়া বলে মনে হয়নি৷ শুরু থেকেই স্টিফেন্সের টেনিস দাপট দেখে মনে হচ্ছিল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্যই কোর্টে নেমেছেন৷ প্রথম সেটে ৬-৩৷ প্রতিপক্ষ স্বদেশীয় ম্যাডিসন ওপেনিং সেটে কিছুটা লড়াই করলেও দ্বিতীয় সেটে স্টিফেন্স ঝড়ের সামনে দিশাহারা হয়ে পড়েন৷ এক তরফা ম্যাচে ম্যাডিসনকে দাঁড়াতেই দেননি স্টিফেন৷  ৬-০ দ্বিতীয় সেট জিতে ট্রফি পাকা করে ইতিহাসের পাতায় নাম তুলে ফেললেন সেরেনা উইলিয়ামের দেশের নয়া সেনসেশন৷ অবাছাই হিসেবে শুরু করে ইউ এস ওপেনে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার তালিকায় পাঁচ নম্বরে নাম লিখিয়ে ফেললেন স্টিফেন৷

আরও পড়ুন- ওয়েটলিফটিং-এ নয়া নজির ভারতীয়দের

ম্যাচ জেতার পর আবেগাপ্লুত স্টিফেন্স বলেন,‘ ইচ্ছে করছে এখনই অবসর নিয়েনি৷ কেরিয়ারে এমন একটা দিন আসবে আশাই করতে পারিনি৷ স্বপ্ন দেখছি মনে হচ্ছে৷ স্বদেশীয় ম্যাডিসন আমার খুব ভাল বন্ধু৷ তাই চেয়েছিলাম ফাইনাল ম্যাচটা ড্র হোক৷ ’

আরও পড়ুন- বিশ্বকাপ থেকে বিদায় আনন্দের

চোটের জন্যই শেষ মরশুমে ইউএস ওপেন থেকে নাম তুলে নিয়েছিলেন স্টিফেন্স৷ এরপর চলতি বছরের শুরুতে ২৩ জানুয়ারি তাঁর বাঁ-পায়ে অস্ত্রোপচার হয়৷ সেই ধাক্কা কাটিয়ে জুলাইয়ে কোর্টে ফিরে উইম্বলডনের প্রথম রাউন্ডেই ছিটকে গিয়েছিলেন৷ চোটের কারণে দীর্ঘ কয়েক মাস কোর্টের বাইরে থাকায় ব়্যাঙ্কিংয়ে ৯৫৭ নম্বরে নেমে আসেন তিনি৷ বছরের শেষ গ্র্যান্ড স্ল্যামে অবশ্য চ্যাম্পিয়ন হয়েই কোর্ট ছাড়লেন ২৪ বয়সের উঠতি তারকা৷ শেষ ১৭ ম্যাচে ১৫ টিতেই অপরাজিত থেকেছেন স্টিফেন্স৷

Advertisement
----
-----