সেলফি প্রতিযোগিতায় জিতলেই পুরস্কার বালুচরী

তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: মন্দির নগরী বিষ্ণুপুরের পর্যটন, সংস্কৃতি, হস্ত শিল্প ও ইতিহাসের প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে অভিনব উদ্যোগ নিল মহকুমা প্রশাসন। আর এই কাজে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়াকেই হাতিয়ার করতে চাইছেন তাঁরা।

সম্প্রতি বিষ্ণুপুর মহকুমা প্রশাসনের তরফে বিশিষ্ট শিল্পীদের দিয়ে মহকুমা শাসকের দফতর, কোষাগার ভবন, উপসংশোধনাগরের প্রাচীরে সুদৃশ্য দেওয়ালে চিত্র আঁকা হয়েছে। আর ফেসবুককে মাধ্যম করে এই দেওয়াল চিত্রের সামনে দাঁড়িয়ে ‘সেলফি প্রতিযোগীতা’র আয়োজন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: নিপা আতঙ্ক দূর করতে জরুরি বৈঠকে প্রশাসন

- Advertisement -

মহকুমা প্রশাসন সূত্রে খবর, ওই দেওয়াল চিত্রের সামনে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলে নিজের ফেসবুক ওয়ালে পোষ্ট করতে হবে। আর আগ্রহীরা তা মহকুমা প্রশাসনের নির্দিষ্ট হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে ‘স্ক্রীন শট’ করে পাঠাতে পারেন। ওই পোষ্টে সর্বোচ্চ লাইক, কমেন্ট আর শেয়ারের ভিত্তিতে প্রথম দশ জনকে পুরস্কৃত করা হবে।

প্রশাসন সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, লাইকের জন্য এক পয়েন্ট, কমেন্টে ও শেয়ারের জন্য ১০ পয়েন্ট করে পাওয়া যাবে। প্রথম দশ প্রতিযোগী বিষ্ণুপুরের বিখ্যাত বালুচরী ও স্বর্ণ চুরী শাড়ির মডেল হওয়ার জন্য নির্বাচিত হবেন। প্রতিযোগিতা শুরু হচ্ছে আজ বুধবার থেকে। প্রতিযোগীতায় যোগদানের সময়সীমা ২৯ জুন রাত বারোটা।

আরও পড়ুন: বুম্বাদার নতুন লুকে কুপোকাত টলিপাড়া

মহকুমা শাসক মানস মণ্ডল জানিয়েছেন, বিষ্ণুপুর শহরকে সাজানোর উদ্দেশ্যে সরকারি প্রাচীর গুলিতে দেওয়াল চিত্র তৈরি করা হয়েছে। এই সেলফি প্রতিযোগিতার মাধ্যমে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে বিষ্ণুপুরের ঐতিহ্যবাহি শিল্প সামগ্রী বিক্রির ব্যবস্থা করা হবে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় স্থানীয় মানুষরাই মূলত তা বিক্রি করবেন।

তিনি আরও বলেন, ‘‘বর্তমান প্রজন্মের সবাই প্রায় এখন ফেসবুক-হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন। মডেল নির্বাচনে আমরা তাই সোশ্যাল মিডিয়াকেই ব্যবহার করেছি। এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার জন্য বয়সের যেমন কোন উর্দ্ধসীমা নেই৷ তেমনি নারী-পুরুষ সবাই অংশ নিতে পারেন৷’’

আরও পড়ুন: নক্ষত্রখচিত মঞ্চে পলি উমরিগড় সম্মান বিরাটের

প্রতিযোগিতার কথা ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই এদিন সকাল থেকেই সেলফি প্রেমী সব বয়সের মানুষ ওই দেওয়াল চিত্রের সামনে জড়ো হয়েছেন। সেলফি তুলে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে বিষ্ণুপুর ছাড়িয়ে দূর দূরান্ত থেকেও অনেকে ভীড় করছেন।

প্রতিযোগিতার খবর পেয়েই এদিন ওই দেওয়াল চিত্রের সামনে সেলফি তুলতে এসেছিলেন বিষ্ণুপুর শহরের শ্রেষ্ঠা দত্ত, শিল্পা দত্তরা। তাঁরা বলেন, ‘অবশ্যই অভিনব আর ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। অনেকে সেলফি তুলে ফেসবুকে আপলোড করব।’ বড়দের পাশাপাশি ছোটোরাও সমান উৎসাহী দেওয়াল চিত্র সহ সেলফি প্রতিযোগিতায়।

শহরের একটি বেসরকারি স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী রঞ্জনা কুণ্ডুও হাজির অভিভাবকদের সঙ্গে। সে বলে, ‘সবাই সেলফি তুলছে। আমিও তুললাম। আর সেলফি তুললে পুরস্কার পাওয়া যাবে জানিয়ে সে বলে তার প্রিয় বেড়ালের ছবির সঙ্গে সে সেলফি তুলেছে।’

আরও পড়ুন: বিজেপিতে যোগদান করলেন তৃণমূলের তিন সভাপতি

বিষ্ণুপুর শহরের বাসিন্দা সন্তু পান এদিন সেলফি তোলার ফাঁকেই বলেন, একটা অন্যরকম ভাবনা প্রশাসনের। মেয়েদের পাশাপাশি আমরা ছেলেরাও এসেছি সেলফি তুলতে।

মহকুমা প্রশাসনের এই অভিনব উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন শহরবাসী। প্রশাসনের এই ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে আগামি কয়েকটা দিন বিষ্ণুপুরবাসী যে সেলফিতে মাতবে তা এক প্রকার নিশ্চিত করে বলাই যায়।

আরও পড়ুন: অমিত শাহর উপস্থিতিতেই বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন মমতার প্রাক্তন মন্ত্রী

Advertisement ---
---
-----