ভুতনিতে শুরু নদীর ভাঙন

মালদহ: টানা বৃষ্টির জেরে ফুঁসছে বিভিন্ন নদী৷ বাঁকুড়া, বীরভূম থেকে জলপাইগুড়ি কিংবা মালদহ৷ সর্বত্রই নদীর রোষ কাঁপন ধরিয়েছে সাধারণ মানুষের মনে৷ নদী যেভাবে আগ্রাসী হচ্ছে তাতে যে কোনও মুহূর্তে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে পারে লোকালয়৷ ভেঙে পড়তে পারে বাড়ি ঘর৷ ইতিমধ্যেই নদীর পাড় ভাঙতে শুরু করেছে মালদহের মানিকচকে৷

আরও পড়ুন: ছাত্রীকে জঙ্গলে তুলে নিয়ে গিয়ে গণধর্ষণ, ভিডিও রেকর্ডিংয়ের অভিযোগ

মরসুমের প্রথম ভাঙনে চিন্তার ভাঁজ মানিকচক ব্লকের ভুতনির কেশরটোলার বাসিন্দাদের কপালে৷ আতঙ্কের প্রহর গুনছেন তাঁরা৷ ভাঙনের কথা স্বীকার করে নিয়েছেন সেচ দফতরের নির্বাহী বাস্তুকারও৷ মালদহে নদী ভাঙন প্রতিবছরের ঘটনা। প্রতিবছরই নদীগর্ভে তলিয়ে যায় বহু এলাকা, চাষের জমি।

বর্ষার মেঘ তাই এলাকার লোকজনের কাছে সিঁদুরে মেঘ৷ এ বছরও তার কোনও অন্যথা হয়নি৷ বর্ষা আসতেই বেড়েছে গঙ্গার জল৷ সঙ্গে শুরু হয়েছে নদীর পাড় ভাঙা৷ শুধু নদীর পাড়ই নয়, ভাঙনের কোপে নদী বাঁধও৷ ভুতনির কেশরটোলা, রুহটোলা-সহ প্রায় ১৫টি গ্রামের বাসিন্দারা আতঙ্কে৷

পাশাপাশি মালদহের কালিয়াচক ৩ নম্বর ব্লকের পারদেওনাপুরে গঙ্গার ভাঙন শুরু হয়েছে। প্রায় ৭০মিটার বোল্ডার দিয়ে বাঁধানো অংশ শুক্রবার ভোরেই গঙ্গাগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে৷ এদিকে নদীর জল বেড়ে যাওয়ায় বোল্ডার দিয়ে নদীপাড় বাঁধানোর কাজও বন্ধ। সেচ দফতরের নির্বাহী বাস্তুকার প্রণবকুমার সামন্তর দাবি, ভাঙন শুরু হলেও মেরামতির কাজ আরম্ভ করা সম্ভব হয়নি। সরকার ফান্ড বরাদ্দ করলেই দ্রুত গতিতে কাজ শুরু করা হবে।