(এই প্রতিবেদনের প্রতিটি তথ্য post card news থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে৷ সংবাদের মূল ভিত্তি এম কে ধরের লেখা বইয়ের তথ্য)

নয়াদিল্লি: কোথায় জন্মেছেন, কোথায় পড়াশোনা, সব ব্যাপারেই নাকি ‘মিথ্যা কথা’ বলেছেন সোনিয়া। জাতীয় কংগ্রেসের সভানেত্রী তথা প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর স্ত্রী সোনিয়া গান্ধী সম্পর্কে এমনই বিস্ফোরক তথ্য রয়েছে একটি বইতে।

প্রাক্তন গোয়েন্দা কর্তার লেখা ওই বইতে সোনিয়া গান্ধী সম্পর্কে একাধিক তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। এমনকি সোনিয়াকে কেজিবি-র চর বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। বইটির নাম “Open Secrets” .

প্রাক্তন আইপিএস অফিসার তথা ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো (আইবি)-র প্রাক্তন সদস্য মলয়কৃষ্ণ ধর তাঁর বইতে লিখেছেন, যে কলেজে সোনিয়া গান্ধীর পড়াশুনো বলে জানা যায় সেই কলেজে ওই নামে কোনও এনরোলমেন্টই হয়নি।

পাশাপাশি তিনি আরও লিখেছেন, যে ইন্দিরা গান্ধীর মন্ত্রিসভার চার মন্ত্রী ও প্রায় দু’ডজন সাংসদ রাশিয়ার গুপ্তচর সংস্থা কেজিবির হয়ে সরাসরি কাজ করতেন। এমনকি সোনিয়া গান্ধীকেও কেজিবি কিংবা পোপের চর হিসেবে ভারতে পাঠানো হয়েছিল বলেও উল্লেখ করেছেন এই প্রাক্তন আইবি অফিসার।

আরও পড়ুন: এবার গরুর থেরাপিতেই ঘটবে আপনার মানসিক রোগ মুক্তি

বইতে লেখা হয়েছে, ১৯৮৫ তে রুশ গুপ্তচর সংস্থা কেজিবি সেইসময় অপ্রাপ্তবয়স্ক থাকা রাহুল গান্ধীর অ্যাকাউন্টে সুইস ব্যাংকে ৯৪০০ কোটি টাকা জমা করে। সেই অ্যাকাউন্ট দেখতেন মা সোনিয়াই। বহু বছর আগে এমন রিপোর্ট প্রকাশ পেয়েছিল Schweitzer Illustrierte নামে একটি সুইস ম্যাগাজিনে। আর অবশ্যই তার মূল্য দিতে হত রাশিয়াকে। কিন্তু একজন ভারতীয় নেতার স্ত্রীকে কেন এত টাকা দিত রাশিয়া? সেই প্রশ্নের কোনও উত্তর মেলেনি। সোনিয়া গান্ধীর রাশিয়ান চর হওয়ার একাধিক প্রমাণ বইতে দাখিল করেছেন এমকে ধর। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, সোনিয়া গান্ধী যদি কোনোদিন প্রধানমন্ত্রী হন, তাহলে ইসরো, ডিআরডিও-তে হওয়া সব কাজকর্ম সম্পর্কে তথ্য চলে যাবে রাশিয়ার হাতে।

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের বিয়ে মানেই নরক! দেখুন সেই যন্ত্রণার ছবি

ইন্দিরা পুত্র সঞ্জয় গান্ধীর মৃত্যুর ঘটনাতেও রাশিয়ার হাত রয়েছে বলে মনে করা হয়। এমনটা করা হয়েছিল যাতে রাজীব গান্ধী পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন। অন্যদিকে, রাজীব গান্ধীকে হত্যা করে শ্রীলঙ্কার জঙ্গি গোষ্ঠী এলটিটিই। প্রমাণ সহ লেখক ওই বইতে উল্লেখ করেছেন যে, রাজীব গান্ধীকে হত্যার পর সোনিয়া গান্ধীর নেতৃত্বের পথ থেকে একের পর একজনকে সরিয়ে দেয় কেজিবি। পরিকল্পিত দুর্ঘটনার মাধ্যমে হত্যা করা হয় অনেককে। কংগ্রেস নেতা রাজেশ পাইলট এক রবিবার দুর্ঘটনায় মারা যান, জিতেন্দ্র প্রসাদ অন্য এক রবিবার মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণে মারা যান, মাধবরাও সিন্ধিয়াও এক রবিবার মারা যান বিমান দুর্ঘটনায়। আর এক কংগ্রেস নেতা কমলনাথ অন্য এক বিমান দুর্ঘটনায় একটুর জন্য বেঁচে যান। বলা হয়, ক্যাথলিকরা রবিবার দিনটিকে শুভ বলে মনে করে।

postcard news-এর স্টোরিটি পড়তে ক্লিক করুন: http://postcard.news/sonia-gandhi-is-a-spy-planted-by-either-kgb-or-pope-intelligence-bureau-officer-m-k-dhar/

আরও পড়ুন: কলকাতা সফরের মাঝেই কুর্সি গিয়েছিল পূর্ব পাকিস্তানের এই বাঙালি প্রধানমন্ত্রীর

----
--