এক্সট্রা টাইমে গড়াল স্পেন-রাশিয়া প্রি-কোয়ার্টার

মস্কো: তুলনামূলক দূর্বল প্রতিপক্ষ৷ তা সত্ত্বেও নির্ধারিত ৯০ মিনিটে জয় তুলে নিতে পারল না ২০১০’এর বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা৷ আয়োজক রাশিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের প্রি-কোয়ার্টারের লড়াইয়ে নেমে শুরুতেই ১-০ গোলে এগিয়ে যায় স্পেন৷ তা সত্ত্বেও ব্যবধান ধরে রাখতে ব্যর্থ রামোস-পিকে-ইনিয়েস্তারা৷ নিজেদের থেকে অনেক শক্তিশালী প্রতিপক্ষের চাপিয়ে দেওয়া গোল প্রথমার্ধেই শোধ করে ম্যাচে ১-১ সমতা ফেরায় রাশিয়া৷ নির্ধারিত সময়ে ম্যাচ অমীমাংসিত থেকে যাওয়ায় এক্সট্রা টাইমে গড়ায় স্পেন বনাম রাশিয়া বিশ্বকাপের তৃতীয় প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল৷

ম্যাচের ১২ মিনিটের মাথায় রামোসকে আটকাতে গিয়ে অজান্তে নিজেদের জালেই বল জড়িয়ে বসেন রাশিয়ান ডিফেন্ডার সার্জেই ইগনাশেভিশ৷ বক্সের বাঁ-দিক থেকে ইস্কোর ফ্রি-কিক উড়ে আসে রাশিয়ার তেকাঠির সামনে৷ সেকেন্ড পোস্টের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা রামোসকে মার্কিংয়ের দায়িত্বে ছিলেন ইগনাশেভিশ৷ স্প্যানিশ তারকাকে আটকাতে চেষ্টায় কসুর করেননি তিনি৷ রামোসকে সঙ্গে নিয়ে মাটিতে পড়ে যাওয়ার সময় বল এসে লাগে ইগনাশেভিশের বুটের ডগায় এবং তা রাশিয়ার জালে জড়িয়ে যায়৷

সার্জেইয়ের আত্মঘাতী গোলে স্পেন ১-০ এগিয়ে যায় ম্যাচে৷ তবে প্রথমার্ধেই লিড খোয়াতে হয় তাদের৷ ম্যাচের ৪০ মিনিটে নিজেদের বক্সেই হ্যান্ডবল করেন পিকে৷ রেফারি রাশিয়ার অনুকূলে পেনাল্টির নির্দেশ দেন৷ স্পট কিক থেকে গোল করতে ভুল করেননি অর্টেম জিউবা৷ পড়ে পাওয়া পেনাল্টি গোলে রাশিয়া ম্যাচে ১-১ সমতা ফেরায়৷

দ্বিতীয়ার্ধে দু’দলই বেশ কয়েকটা সুযোগ তৈরি করে৷ তবে তা থেকে গোল করতে পারেনি কেউই৷ ম্যাচের বয়স যত গড়িয়েছে, স্পেন মরিয়া আক্রমণ শানিয়েছে রাশিয়ার বক্সে৷ তবে রাশিয়ান গোলকিপার আকিনফিভ দূর্ভেদ্য হয়ে দাঁড়ানোয় স্পেনের সব প্রচেষ্টাই ব্যর্থ হয়৷

Advertisement
----
-----