তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: এক বিশেষ ধরণের ছত্রাক এখন বাঁকুড়ার সর্বস্তরে বিশেষ আলোচনার জায়গা করে নিয়েছে। সম্প্রতি জেলার সোনামুখীর পাঁচাল জঙ্গলে দেখা মিলেছে বিরল প্রজাতির এই ছত্রাকের। এই ছত্রাকের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে এই ছত্রাক থেকে বেরিয়ে আসে এক বিশেষ ধরণের আলো।

যা সম্পূর্ণ এলাকাকে অন্ধকারে এক মায়াবী নীলাভ আলোয় ভরিয়ে দেয়। স্থানীয়দের মাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ এমনকি বিজ্ঞানী মহলেও যথেষ্ট সাড়া ফেলেছে। জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুক আর হোয়াটসঅ্যাপের দৌলতে তো এখন পাঁচালের এই ছত্রাক রীতিমতো ভাইরাল।

আরও পড়ুন: বিমানবন্দরের ভেতরে ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি! দেখুন ভিডিও

বিভিন্ন সূত্র থেকে সংগৃহীত তথ্যে জানা গিয়েছে, এই বিশেষ ধরণের ছত্রাকের নাম ‘অফালোটাস নিডিফরমিস’। অনেকে একে ভূত ছত্রাকও বলে থাকেন। মূলত: অস্ট্রেলিয়া ও তাসমানিয়ায় এই ধরণের ছত্রাকের দেখা মেলে। এর আগে ২০১২ সালে কেরলে এই বিশেষ প্রজাতির বিরল ছত্রাকের দেখা মিলেছিল।

কয়েক বছর পরেই কেরল থেকে সরাসরি পশ্চিমবঙ্গের রুখা-শুখা বাঁকুড়ার সোনামুখীর জঙ্গলে এই ছত্রাকের দেখা মেলায় জনমানবে কৌতূহলের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা তো আছেনই জেলার গণ্ডী ছাড়িয়ে অন্য জেলার মানুষও এই ভূত ছত্রাককে নিজের চোখে দেখতে সন্ধ্যে নামার আগেই হাজির হয়ে যাচ্ছেন পাঁচালের জঙ্গলে।

আরও পড়ুন: সভাপতি অধীর চৌধুরীর সামনেই মারামারিতে জড়ালেন ছাত্রনেতারা

দুর্গাপুরের বিধান নগরের বাসিন্দা রণবীর দত্ত, বাঁকুড়ার প্রণবেশ পাত্ররা বলেন, ‘কয়েক দিন ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় বিষয়টা দেখছি। তাই আর লোভ সামলাতে পারলাম না। স্থানীয় মানুষদের কাছে খোঁজ করে করে সোজা চলে এলাম পাঁচালের এই জঙ্গলে।’

এই বিশেষ ধরণের বিরল ছত্রাক অন্ধকারে নীলাভ আলো দিলেও ক্যামেরা বন্দী করলে সেই ছবি হালকা সবুজের চেহারা নিচ্ছে। এই বিষয়টিও দর্শনার্থী থেকে সাধারণ মানুষ সকলের কাছেই অন্যতম আগ্রহ ও কৌতূহলের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেরলের দেখা মেলার ছয় বছরের মাথায় দেখা মিলল পশ্চিমবঙ্গের সোনামুখীর পাঁচালে। এরপরে কবে কোথায় আবারও এই ভূত ছত্রাকের দেখা মিলবে সেদিকেই তাকিয়ে কৌতূহলী মানুষ।

আরও পড়ুন: আগামী চার বছরেই রসমতিতে ছাড়া হবে গণ্ডার

----
--