শিক্ষার মান উন্নয়নে পথ দেখাচ্ছে শ্রীধর বংশীধর উচ্চ বিদ্যালয়

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: উত্তর কলকাতার প্রাচীন ও ঐতিহ্যপূর্ণ স্কুলগুলির মধ্যে অন্যতম হল ইছাপুর নবাবগঞ্জ শ্রীধর বংশীধর উচ্চ বিদ্যালয়৷ ১৮৮০ সালে ব্রিটিশ শাসনকালে শ্রীধর বংশীধর স্কুলের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল স্থানীয় বাসিন্দাদের শিক্ষিত করার উদ্দেশ্যে।

বর্তমানে উচ্চ শিক্ষা দফতরের নিয়ন্ত্রণাধীন রাজ্য সরকারি এই বাংলা স্কুল এলাকার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলির কাছে পথ প্রদর্শক হয়ে উঠেছে। শনিবার ইছাপুর নবাবগঞ্জ অঞ্চলের অন্তত ১৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কয়েকশ ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে শ্রীধরবংশীধর উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বসে আঁকও প্রতিযোগিতা এবং আবৃত্তি প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল।

- Advertisement DFP -

এলাকার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে ছাত্রছাত্রীদের কীভাবে পড়াশোনায় মনোযোগী করে তোলা যায়৷ রাজ্য সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন প্রাথমিক স্কুলগুলিতে কীভাবে শিক্ষার মান উন্নয়ন করা যায়৷ সেই সব বিষয় নিয়েও আলোচনা করা হয় এই অনুষ্ঠানে। এলাকার প্রাচীন বাংলা স্কুল হিসেবে পরিচিত এই স্কুল এখনও অনুপ্রেরণা বিভিন্ন প্রাথমিক বাংলা স্কুলগুলির কাছে।

শ্রীধরবংশীধর উচ্চ বিদ্যালয়ে মূলত পঞ্চম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পড়ানো হয়। কিন্তু শুধুমাত্র নিজেদের স্কুলের কথা চিন্তা করে না এই স্কুলের কর্তৃপক্ষ৷ তাই নিঃস্বার্থ ভাবেই এলাকার বিভিন্ন প্রাথমিক বাংলা স্কুলগুলিকেও কীভাবে উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থার মধ্যে নিয়ে যাওয়া যায় সেই পথই দেখাচ্ছে এই স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা।

উত্তর বারাকপুর পুরসভার পুরপ্রধান স্থানীয় তৃণমূল নেতা মলয় ঘোষ এদিন এসেছিলেন শ্রীধর বংশীধর উচ্চ বিদ্যালয়ে। তিনি বলেন, ‘‘ইছাপুর শ্রীধর বংশীধর উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এলাকার বিভিন্ন প্রাথমিক বাংলা স্কুলগুলির শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য যে ভাবে সচেষ্ট হয়েছে৷ তা অন্যান্য স্কুলের কাছে অনুপ্রেরণা। তাদের কাজের প্রশংসার কোন ভাষা নেই। এই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রচেষ্টা নিশ্চিতভাবে ইছাপুর নবাবগঞ্জ অঞ্চলে শিক্ষায় পুরনো হৃত গৌরব ফিরিয়ে আনবে।’

Advertisement
----
-----