রাজ্যে ফিরে নিরাপদ বোধ করছেন, জানালেন শ্রীজাত

স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: কিছুদিন আগেই অসমের শিলচরে হেনস্থার শিকার হন কবি শ্রীজাত৷ দেশ জুড়ে আলোড়ন তৈরি হয় সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে৷ বুধবার মালদহ বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন কবি শ্রীজাত৷

এদিন তিনি বলেন রাজ্যে ফিরে নিজেকে নিরাপদ বোধ করছেন৷ এতদিন অসহিষ্ণু পরিবেশে ছিলেন বলেও আক্ষেপ প্রকাশ করেন তিনি। বুধবার মালদহ জেলার ৩০ তম বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসেছিলেন কবি৷

কিছুদিন আগেই শিলচরে তার হেনস্থা ঘিরে রাজ্য তথা দেশজুড়ে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। স্বাভাবিকভাবেই শ্রীজাতকে কেন্দ্র করে এবারে জেলার সাংস্কৃতিক জগতের মানুষদের উৎসাহ ও উদ্দীপনা ছিলো চোখে পড়ার মতো। ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যেও উৎসাহ লক্ষ্য করা যায়।

আরও পড়ুন : বিদ্রোহী কবির লেখায় কাঁপল ব্রিটিশ, দণ্ডিত সশ্রম কারাদণ্ডে

শ্রীজাত ছাড়াও এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সাগর সেন, জেলার পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ, জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌর চন্দ্র মন্ডল, বইমেলা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক অম্লান ভাদুড়ী, চেয়ারম্যান নীহার রঞ্জন ঘোষ ও ভাইস চেয়ারম্যান বাবলা সরকার, রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী সাবিত্রী মিত্র সহ অন্যান্যরা।

এদিন মালদহ বৃন্দাবনী ময়দান থেকে ট্যাবলো সহকারে ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে এক বিশাল শোভাযাত্রা বের হয়। শহর পরিক্রমা পর পুরাটুলি এলাকার মহানন্দা নদীর পাড়ে বইমেলা প্রাঙ্গনে আসে সেই শোভাযাত্রা। প্রদীপ প্রজ্বলনের মাধ্যমে বইমেলার উদ্বোধন করেন কবি শ্রীজাত। তবে এবারের বইমেলায় স্থান পরিবর্তনকে নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়। মালদহ কলেজে রজত জয়ন্তী বর্ষ হওয়ার কারণে এবারের বইমেলা শহর থেকে বাইরে পুরাটুলি এলাকায় করা হয়।

বই মেলা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক অম্লান ভাদুড়ী বলেন, বইমেলার স্থান পরিবর্তন নিয়ে কোন সমস্যা নেই। যারা বই প্রেমী মানুষ তারা সব জায়গাতেই আসবেন। এবারের বইমেলার থিম সম্প্রীতি। এবারের বইমেলায় ২২৫ টি স্টল রয়েছে। এটি রাজ্যের দ্বিতীয় বৃহত্তম বইমেলা। জেলা শাসকের সাথে সাথে বাইরের বহু প্রকাশকরা এসেছেন৷