উত্থান দিবসকে ঘিরে পঞ্চায়েত ভোটের মরিয়া লড়াইয়ে নামবে বিজেপি

তনুজিৎ দাস, কলকাতা: বছর শেষ হলে, সামনের বছরের প্রথম পর্বেই রাজ্যে হতে চলেছে ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচন৷ আর সময় নষ্ট নয়! এখন থেকেই তাই পঞ্চায়েত বা গ্রাম ভিত্তিক ইস্যুকে ধরে রাজ্যের তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামতে চাইছে বঙ্গ গেরুয়া ব্রিগেড৷সেই লক্ষ্যে সম্ভবত বিজেপির ‘উত্থান দিবস’কেই বেছে নিতে চলেছেন রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব৷

বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহার সময় থেকে চালু হয়েছিল উত্থান দিবস পালন। আগে জনসভা করে হলেও, দিলীপ ঘোষ রাজ্য বিজেপির সভাপতির পদে বসার পরে তা বিভিন্ন জেলায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়৷ বিভিন্ন জেলাস্তরে বিক্ষোভ কর্মসূচির মাধ্যমে পালন করা হয় এই উত্থান দিবস৷ রাজ্য বিজেপি সূত্রে খবর, এই বছরও ৩০ নভেম্বর রাজ্যের বিভিন্ন ব্লক ও পঞ্চায়েতে বিক্ষোভ, ঘেরাওয়ের মাধ্যমে পালন করা হবে এই কর্মসূচি৷

আরও পড়ুন: সুজন-সৌজন্যতার আড়ালে কি ভোটের জোটের প্রস্তুতি মুকুল-পার্থের?

- Advertisement -

কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা নিয়ে নাম বদলে তা রাজ্যের বলে প্রচার করছে তৃণমূল সরকার৷একাধিকবার এই অভিযোগ তুলে সরব হয়েছেন পদ্ম শিবিরের নেতারা৷ তাদের স্পষ্ট অভিযোগ, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের টাকা নিয়ে, তা নিজেদের নাম দিয়ে প্রচার চালাচ্ছে রাজ্যের তৃণমূল সরকার৷ গেরুয়া শিবিরের অভিযোগের তালিকা থেকে বাদ পড়েনি রাজ্য সরকারের কন্যাশ্রী প্রকল্প থেকে, দু’টাকা কিলো দরে চালও৷ জানা গিয়েছে, উত্থান দিবসে গেরুয়া শিবিরের হাতিয়ার হতে চলেছে এই ইস্যু গুলি৷ সঙ্গে যুক্ত হবে, তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত ও পুরসভা গুলির বিরুদ্ধে ওঠা বিপুল অর্থ তছরুপের মতো অভিযোগ৷

সূত্রের খবর, কেবল একদিনের বিক্ষোভ কর্মসূচি করেই এই ইস্যুগুলিকে থিতিয়ে যেতে দেবেন না রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব৷ পঞ্চায়েত পর্যন্ত আগে এই ইস্যুকে জাগিয়ে রেখে শাসককে প্যাঁচে ফেলতে প্রস্তুত হচ্ছেন তারা৷ রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু জানিয়েছেন, উত্থান দিবসে বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে পঞ্চায়েত ও বিডিও অফিস এবং শহরাঞ্চলে বরো অফিস ঘেরাও করবেন বিজেপি কর্মীরা৷ কোথাও কোথাও তাতে যোগ দেবেন রাজ্য বিজেপি নেতারাও৷ থাকছে ডেপুটেশন৷

আরও পড়ুন: অনুব্রতকে ডাণ্ডা মেরে ঠাণ্ডা করে দেওয়ার ‘হুমকি’ জয়ের

রাজ্যর শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের একদা ‘সেকেন্ড ইন কমান্ড’ মুকুল রায় তাদের দলে আসার পরে বাড়তি আত্মবিশ্বাস পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গে বাড়তে থাকা বিজেপি৷ এই বিষয়ে কোনও সন্দেহই প্রকাশ করছে না রাজনৈতিক মহল৷ প্রথমেই কোনও বড় মাথাকে গেরুয়া শিবিরে না এনে, ভীত থেকে তৃণমূলকে ভাঙার কাজ শুরু করেছেন মুকুল রায়৷

Advertisement ---
---
-----