সিডনি: কোনও রকম ফর্মাল হেয়ারিং ছাড়াই স্মিথদের শাস্তি ঘোষণা করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া৷ শুনানিতে দোষি ক্রিকেটাররা হাজির থাকলে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ পেতেন৷ সে সুযোগ পাননি স্মিথ-ওয়ার্নাররা৷ তাই জল্পনা ছিল বিষয়টি নিয়ে বোর্ড কিংবা আদালতের দ্বারস্থ হতে পারেন প্রাক্তন অজি অধিনায়ক৷ জল্পনা উড়িয়ে দিয়ে স্মিথ জানালেন তিনি ওরকম কিছু করছেন না৷ বুধবার টুইট করে বিষয়টি পরিস্কার করেছেন অজি অধিনায়ক৷

টুইটারে সদ্য ক্রিকেট থেকে এক বছরের জন্য নির্বাসিত অজি অধিনায়ক জানিয়েছেন, ‘দেশের হয়ে ফিরে আসার জন্য যা করতে হয় আমি করব৷ অধিনায়ক হিসেবে দলের সম্পূর্ণ দায় আমি নিজের উপর নিয়েছি৷ আমি বোর্ডের সাজাকে মোটেও চ্যালেঞ্জ জানাবো না৷ ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তরফে একটা শক্তিশালী বার্তা দেওয়ার জন্য এই সাজা দেওয়া হয়েছে এবং আমি এটাকে স্বীকার করে নিয়েছি৷’

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার নির্বাসনের শাস্তি মেনে নিয়েছিলেন কেপ টাউনে বল বিকৃতি কাণ্ডের তিন নায়ক স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার ও ক্যামেরন ব্যানক্রফট৷ স্মিথ ও ওয়ার্নার আগামী এক বছর ও ব্যানক্রফট আগামী ৯ মাস ব্যাট-বল হাতে নেবেন না৷ তবে অনেকেই ভেবেছিলেন শাস্তি কিছুটা শিথিল করার রাস্তা খুঁজছেন তিন তারকাই৷ বোর্ডের আচরণবিধি মেনে শাস্তির বিরুদ্ধে আবেদন করা যায় কি না সেই দিকটাও খতিয়ে দেখছিলেন স্মিথ-ওয়ার্নারদের আইনি পরামর্শদাতারা৷ অন্তত বোর্ডের কাছে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার অনুমতি চেয়ে আবেদন করতেই পারতেন স্মিথরা৷ কিন্তু সে রাস্তায় হাঁটছেন না অজি অধিনায়ক৷ দোষ স্বীকার করে নেওয়ার পর এবার মাথা পেতে শাস্তি গ্রহণ করলেন স্মিথ৷

----
--