ভোটে মৃত্যু নিয়ে ডেরেকের ট্যুইটে ঝড় সোশ্যাল মিডিয়ায়

কলকাতা: পঞ্চায়েত ভোট ঘিরে রাজ্যজুড়ে হিংসার জেরে মানুষের মৃত্যু নিয়ে তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েনের ট্যুইট দেখে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় উঠেছে৷ তিনি তাঁর ট্যুইট বার্তায় আগে কবে কখন এ রাজ্যে ভোটে কতজনের মৃত্যু হয়েছে তা উল্লেখ করে এদিনের ভোটে মানুষের মৃত্যুর ঘটনাকে যেন লঘু করে দিতে চেয়েছেন৷ বিখ্যাত এই কুইজ মাস্টারের এ হেন আচরণে ক্ষুব্ধ অথবা হতাশ হয়েছেন অনেকে৷ আর সেকথা রিট্যুইট করে ব্যক্তও করেছেন তারা ৷

ডেরেক তাঁর ট্যুইটে , এ রাজ্যের হিংসার ইতিহাস নিয়ে ‘নতুন জন্ম নেওয়া’ বিশেষজ্ঞদের কাছে প্রশ্ন রেখেছেন ৷ তিনি ওই ট্যুইটে উল্লেখ করেছেন , সিপিএমের আমলে ’৯০ দশকে ভোটের হিংসার বলি হয়েছিলেন ৪০০ জনের মতো মানুষ৷ ২০০৩ সালে রাজ্যে মারা গিয়েছিলেন ৪০ জন৷ যে কোনও মৃত্যুই দুঃখজনক বলেও পাশপাশি তিনি যুক্তি দেখান, এবারে আগের মতোই স্বাভাবিক৷ ডজন খানেক ঘটনা ঘটেছে বলে স্বীকার করেও তিনি প্রশ্ন রেখেছেন ৫৮,০০০ বুথের মধ্য ৪০ জন এটা শতকরা হিসেবে কত হচ্ছে ?

তাঁর ট্যুইটের বক্তব্য দেখে অনেকের মনে হয়েছে তিনি যেন হিংসার বলিকে একধরনের মান্যতা দিচ্ছেন৷ ফলে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে ক্ষোভ অথবা হতাশা উগরে দিয়েছেন৷ কারও মনে হয়েছে তিনি রাজনৈতিক হত্যাকে সমর্থন করছেন৷ কারও বক্তব্য তিনি বিশ্বাসই করতে পারছেন না যাঁকে তিনি এত শ্রদ্ধা করেন তাঁর কাছ থেকে এমন কথা শুনতে হবে৷

আবার কেউ বা ডেরেককে পালটা প্রশ্ন করেছেন, তিনি কি ইতিহাস জানেন না তবে কেন গোরক্ষপুরে শিশুমৃত্যু নিয়ে সরব হয়েছিলেন? কেউ বা তাঁর কাছে প্রশ্ন রেখেছেন, তবে ২০১১ সালে পরিবর্তন কি হল? কেউ প্রশ্ন করেছেন প্রতি বুথে কত জনের মৃত্যু গ্রহণযোগ্য? তাঁর এই ট্যুইট দেখে কারও পরামর্শ তিনি যেন বোর্নভিটা ক্যুইজেই নিজেকে সীমাবদ্ধ রাখেন৷

Advertisement ---
---
-----