‘ড্রেসিংরুমে যুবির উপস্থিতি আমাদের অনুপ্রেরণা’

সুশান্ত মণ্ডল: ‘মেন ইন ব্লু’ জার্সিতে শেষবার মাঠে নেমেছিলেন ৩০ জুন, ২০১৭৷ অর্থাৎ দেড় বছর জাতীয় দলের বাইরে ‘পঞ্জাব কা পুত্তর’৷ কিন্তু তিনি এখনও টিম ইন্ডিয়ার জার্সি গায়ে মাঠে নামার স্বপ্ন দেখেন! স্বপ্ন দেখেন ইংল্যান্ডের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলার৷ কিন্তু দু-দু’টি বিশ্বকাপের নায়কের বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন প্রায় ক্ষীণ৷ কারণ রঞ্জি ট্রফিতে ব্যাট হাতে নির্বাচকদের নজর কাড়তে ব্যর্থ যুবরাজ সিং৷

বাংলার বিরুদ্ধে রঞ্জি ট্রফির গ্রুপের শেষ ম্যাচে বাংলার বিরুদ্ধেও ‘খামোশ’ যুবি ব্যাট৷ প্রথম ইনিংসে ১ রানে বাংলার প্রতিশ্রুতিময় স্পিনার প্রদীপ্ত প্রামাণিকের বলে বোল্ড হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ১২ রানে রান-আউট হয়ে ২০১৮-১৯ মরশুমে যুবির রঞ্জি যাত্রা৷ কারণ বৃহস্পতিবার বাংলার বিরুদ্ধে ড্র করার ফলে কোয়ার্টার ফাইনালের ছাড়পত্র জোগাড় করতে ব্যর্থ পঞ্জাব৷

চলতি মরশুমে পঞ্জাবের হয়ে পাঁচ ম্যাচে যুবরাজের সর্বোচ্চ স্কোর ৪১৷ সাত ইনিংসে ১০০ রানের গন্ডিও টপকাতে পারেননি এক সময়ের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান৷ রঞ্জিতে এবার তাঁর মোট করান ৯৯৷ যদিও এদিন বাংলার বিরুদ্ধে ম্যাচ জিতে ‘হিরো’ হওয়ার সুযোগ ছিল ৩৭ বছরের যুবির সামনে৷ কিন্তু ব্যক্তিগত ১২ রানে রান-আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি৷

সাম্প্রতিক ফর্ম নিয়ে তিনিও যে হাতাশ, তা স্বীকার করে নিয়েছেন পঞ্জাবের ক্যাপ্টেন তথা নাইটদের প্রাক্তন ব্যাটসম্যান মনদীপ সিং৷ ম্যাচের পর মনদীপ বলেন, ‘আমার মনে হয় নিজের ফর্ম নিয়ে যুবি পাজিও হতাশ৷ কারণ মরশুমটা মোটেই ভালো যায়নি৷ তবে ড্রেসিংরুমে ওর উপস্থিতি আমাদের অনুপ্রেরণা দেয়৷ তরুণ মোটিভেট করে৷ পাজিও টিমের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য৷’

২০০৭ দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে টি-২০ বিশ্বকাপ জয় হোক, ২০১১ ওয়ান ডে বিশ্বকাপ৷ টিম ধোনির বিশ্ব জয়ে বড় ভূমিকা ছিল যুবির৷ কিন্তু ২০১৯-এ বিরাটের বিশ্বকাপের দলে ঠাঁই পাওয়া কার্যত অসম্ভব পঞ্জাবের এই বাঁ-হাতির৷ কিন্তু হাল ছাড়ার পাত্র নন যুবরাজ৷ ঘনিষ্টমহলে ইংল্যান্ডের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলার ইচ্ছের কথা জানিয়েছেন যুবরাজ৷ কিন্তু রঞ্জি ট্রফিতে চূড়ান্ত ব্যর্থ হওয়ার পর যুবির ইচ্ছপূরণ প্রায় অসম্ভব৷

সল্টলেকের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মাঠে বাংলার বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে নামার আগে সৌরভ গঙ্গোপ্যাধায়ের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ কথা বলতে দেখা গিয়েছিল যুবরাজকে৷ মাঠের মাঝে গিয়ে সৌরভের সঙ্গে একান্তে কথা বলেন টিম ইন্ডিয়ার বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান৷ প্রিয় মহারাজের নেতৃত্বেই জাতীয় দলে অভিষেক হয়েছিল যুবির৷ বাকিটা ইতিহাস৷ দেশের হয়ে ৪০টি টেস্ট, ৩০৪টি ওয়ান ডে এবং ৪৮টি টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন ভারতের ২০১১ বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক৷

এ বছর যুবির রঞ্জি যাত্রা শেষ হয়ে গেলেও আইপিএলের আগে পঞ্জাবের হয়ে সৈয়দ মুস্তাক আলি জাতীয় টি-২০ খেলতে দেখা যেতে পারে যুবরাজকে৷ কারণ মার্চের শেষে শুরু হচ্ছে দ্বাদশ আইপিএল৷ ফর্মে না-থাকা যুবি আইপিএলের প্রথম নিলামে অবিক্রিত ছিল৷ কিন্তু দ্বিতীয়বার নিলামে ওঠার পর তাঁকে ১ কোটি দিয়ে কেনে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স৷ গত বছর প্রীতি জিন্টার কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের হয়ে খেললেও দাগ কাটতে ব্যর্থ হওয়ায় তাঁকে ২০১৯ আইপিএল নিলামের আগে ছেঁটে ফেলে প্রীতির দল৷

---- -----