কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজ্যে আছড়ে পড়বে ব্যাপক ঝড়

কলকাতা: রাজ্যে ব্যাপক ঝড়ের পূর্বাভাস। সোমবার বিকেলের মধ্যে এরাজ্যের চারটি জেলায় প্রবল বেগে আছড়ে পড়বে ঝড়। মুর্শিদাবাদ, নদিয়া, বর্ধমান ও বীরভূমে চূড়ান্ত সতর্কবার্তা জারি করেছে হাওয়া অফিস। ইতোমধ্যেই বেশ কিছু জায়গায় শুরু হয়ে গিয়েছে বৃষ্টি।

আরও পড়ুন: লিফটে চেপেই গেলে হয় চাঁদে! ভারতীয় ছাত্রের সুপার-আইডিয়াকে পুরস্কৃত করছে NASA

জানা গিয়েছে, এদিন ৫০-৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড় আছড়ে পড়বে এই চার জেলায়। ইতিমধ্যেই সেখানকার বাসিন্দাদের সতর্ক করা হয়েছে। কাটোয়া, বোলপুর ইত্যাদি জায়গায় শুরু হয়েছে তুমুল বৃষ্টি। এই ঝড়ের প্রভাব পড়বে কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলেও।

- Advertisement -

আরও পড়ুন: আবহাওয়া-যুদ্ধ! যে কোনও সময় ভারতে বন্যা বা খরা ঘটাতে পারে চিন

আলিপুর আবহাওয়া অফিস সূত্রে আগেই জানানো হয়েছিল, উত্তর বাংলাদেশ থেকে ওড়িশা পর্যন্ত ৯০০ মিটার ব্যাপী একটি ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছে রবিবার৷ এই ঘূর্ণাবর্তের প্রভাবে কলকাতায় বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা না থাকলেও, আকাশ থাকবে মেঘলা৷ কাজেই, রোদের দাপট কিছুটা কমবে৷ তবে, এই ঘূর্ণাবর্তের প্রভাবে খানিক স্বস্তিতে থাকবে রাজ্যবাসী। কারণ, এই ঘূর্ণাবর্তের জেরে দক্ষিণবঙ্গের কয়েকটি জেলায় যেমন বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে৷ তেমনই, উত্তরবঙ্গের আবহাওয়ার তেমন কোনও পরিবর্তনের সম্ভাবনাও নেই৷ অর্থাৎ, উত্তরবঙ্গে যেমন গত কয়েক দিন ধরে বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি হচ্ছে, আগামী দু’দিন আবহাওয়া তেমনই থাকবে বলে পূর্বাভাসে জানিয়েছে কলকাতার হাওয়া অফিস৷

আরও পড়ুন: ঘূর্ণাবর্তের জেরে কলকাতায় কমবে রোদের দাপট

উল্লেখ্য, চলতি মাসের শুরুতেই পাহাড়ে লাগাতার বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছিল হাওয়া অফিস৷ আবহাওয়া বিভাগ জানাচ্ছে, আগামী তিনদিন পূর্ব সিকিমে ভারি বৃষ্টি চলবে৷ দুর্ঘটনা এড়াতে সিকিম সরকার চিন সীমান্তের নাথু লা ও ছাঙ্গু লেক যার পারমিট ইস্যু সাময়িক স্থগিত করল৷ আগামী ৭২ ঘণ্টা পূর্ব সিকিমে এই নিয়ম জারি থাকবে৷ রাজধানী গ্যাংটক পড়ছে পূর্ব সিকিমে৷ এছাড়াও রয়েছে ইয়াকসাম, রাবাংলা, লাচুং, পেলিং, রুমটেক, নামচির মতো সহ জনপ্রিয় টুরিস্ট স্পট৷ সর্বত্রই বাড়ছে ভিড়৷ এরইমধ্যে আকাশ কালো করে পূর্ব সিকিমে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকছে৷ তাই পর্যটকদের জন্য জারি হয়েছে সতর্কতা৷

গরম পড়তেই সিকিম ঘোরার পরিকল্পনা করেন ভ্রমণপিপাসুরা৷ বিভিন্ন রাজ্য থেকে পর্যটকরা সিকিমের বিভিন্ন স্থান ঘুরতে যান৷ সেই তালিকায় বিশেষ স্থান করে নেন বাঙালি পর্যটকরা৷ প্রতিবছরের মতো এবছরও সিকিমে পৌঁছে যেতে শুরু করেছেন বাঙালিরা৷ সিকিম প্রশাসন সূত্রের খবর, গত কয়েক দিন ধরেই উত্তর সিকিম এবং পূর্ব সিকিমে বৃষ্টি চলছে। কিছু এলাকায় বরফ পড়ছে। তার জেরে গ্যাংটক-উত্তর সিকিমের রাস্তাটি কয়েক দফায় বন্ধ হয়। শনিবার সন্ধ্যার পরেই চুংথাং-এর রাংমা রেঞ্জে তিস্তার জল বেড়ে ভাসিয়ে দেয় বিরাট এলাকা। বিআরও এবং আইটিবিপি ক্যাম্পের ১৫টি ট্রিপার ট্রাক জলের তোড়ে ভেসে যায়। পরে ক্ষতিগ্রস্ত অবস্থায় সেগুলিকে উদ্ধার করা হয়েছে।

Advertisement
---