‘শ্লীলতাহানিতে অভিযুক্ত’ অধ্যাপকের কলেজে যোগদান আটকাতে আন্দোলন

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: অধ্যাপকের বিরুদ্ধে উঠেছি শ্লীলতাহানির অভিযোগ৷ যার জেরে সাসপেন্ডও হতে হয় অভিযুক্ত অধ্যাপককে৷ কিন্তু কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে বাতিল হয়ে গিয়েছে সেই সাসপেনশন৷ তার পরও ওই অধ্যাপককে কাজে যোগ দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠল৷

সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানে৷ সেখানকার হাটগোবিন্দপুরের ডাক্তার ভুপেন্দ্র নাথ দত্ত স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার বেঁধে যায়৷ অধ্যাপককে আটকাতে ধরনায় বসে পড়েন ছাত্রছাত্রীরা৷ অন্যদিকে রাজ নারায়ণ রায় নামে ওই অধ্যাপকের দাবি, তিনি নির্দোষ৷ তাঁকে কলেজ থেকে সরাতে চক্রান্ত চালানো হচ্ছে৷

আরও পড়ুন: মহিলা সিভিক ভলান্টিয়ার খুনে সুপারি কিলার, সংকটে সন্তান

- Advertisement -

কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনার সূত্রপাত গত বছরের ডিসেম্বর মাসে৷ কলেজের বটানি বিভাগের প্রধান রাজ নারায়ণ দাসের বিরুদ্ধে এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে৷ এই ঘটনায় বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমতিক্রমে তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটির কাছেও অভিযোগকারী ছাত্রী অধ্যাপকের বিরুদ্ধে বয়ান দেন। এই ঘটনায় ওই অধ্যাপককে সাসপেন্ড করা হয়। পাল্টা অভিযুক্ত অধ্যাপক এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানান। কিন্তু কোনও কাজ না হওয়ায় তিনি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন।

এবার হাইকোর্ট ওই অধ্যাপকের পক্ষেই রায় দেয়৷ সেই পাওয়ার পর গত শনিবার কলেজে হাজির হয়েছিলেন রাজ নারায়ণ দাস৷ কিন্তু সেদিন অধ্যক্ষ কলেজে উপস্থিত ছিলেন৷ তাই সেদিন তিনি কাজে যোগ দিতে পারেননি৷ ফিরে আসেন৷ তাঁর অভিযোগ, কলেজ অধ্যক্ষ না থাকায় ভারপ্রাপ্ত টিচার ইনচার্জ রাজনারায়ণবাবুকে কাজে যোগ দিতে দেননি৷ সরাসরি তিনি জানিয়ে দেন যতক্ষণ না কলেজ অধ্যক্ষ আসছেন, ততক্ষণ তিনি রাজনারায়ণবাবুকে কাজে যোগ দেবার অনুমোদন দিতে পারবেন না।

আরও পড়ুন: ছেলের মতো অন্য কমরেডদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত সেলিম

সোমবার ফের রাজনারায়ণবাবু কলেজে আসেন। অভিযোগ, তাঁর সঙ্গে আসেন রাজনারায়ণবাবুর স্ত্রী ও শ্বশুর। ভারপ্রাপ্ত টিচার ইনচার্জ নির্মলা রজক অভিযোগ করেছেন, রাজনারায়ণবাবুরা এদিন তাঁকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছেন। এদিকে, এই ঘটনার পরই কলেজে উত্তেজনা ছড়ায়। খবর পেয়ে কলেজের ছাত্রছাত্রী থেকে অধ্যাপকরাও টিচার ইনচার্জের ঘরের সামনে রাজনারায়ণবাবুর বিরুদ্ধে ধরনা শুরু করেন৷ তাঁকে কাজে যোগ দিতে না দেওয়ার দাবি জানান তাঁরা৷ এদিন তাঁরা রাজনারায়ণবাবুর বিরুদ্ধে কলেজে ঠাঁই নেই বলেও শ্লোগান দেন।

রাজনারায়ণবাবু এদিন জানান, সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ তোলা হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। তিনি সম্পূর্ণ নির্দোষ। কয়েকজন উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তাঁকে কলেজ থেকে সরানোর জন্য চক্রান্ত করছেন।

আরও পড়ুন: সুশীল সমাজকে একত্রিত হতে বিজেপি-মঞ্চের আহ্বান

Advertisement
---