যৌন হেনস্থার অভিযোগ করায় পাথর দিয়ে মাথা থেঁতলে খুন যুবতীকে

ফাইল ছবি

ভোপাল: যৌন হেনস্থার অভিযোগ প্রত্যাহার করার চাপ দিচ্ছিল অভিযুক্ত৷ কিন্তু কোনও চাপের কাছে নতি স্বীকার করেননি অভিযোগকারী৷ তারই খেসারত দিতে হল ২৩ বছরের যুবতীকে৷ মধ্যপ্রদেশে সিওনিতে প্রকাশ্য দিবালোকে এক কলেজ ছাত্রীকে খুন করা হল৷ ধৃত অভিযুক্ত অনিল মিশ্র(৩৮)৷

আরও পড়ুন: রঙ বদলায় এই শিবলিঙ্গ, দুপুরে হয়ে যায় গেরুয়া!

পুলিশ জানিয়েছে, ওই যুবতী নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু সরকারি কলেজের ছাত্রী৷ সোমবার কলেজের বাইরে বাইকে অপেক্ষা করছিল অনিল৷ ওই পড়ুয়াকে কলেজ থেকে বেরতে দেখে তাঁর পিছু নেয়৷ কিছু দুর যাওয়ার পরই মেয়েটির চুলের মুঠি ধরে রাস্তার ধারে নিয়ে যায়৷ এরপর পাথরের মধ্যে তাঁর মাথা ঠুকে দেয়৷ মেয়েটির চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে আসে এবং অনিলকে ধরে ফেলে৷

- Advertisement -

জানা গিয়েছে, অভিযোগকারী যুবতী ও অনিল একই এলাকার বাসিন্দা৷ ওই যুবতীকে উত্যক্ত করত অনিল৷ এমনকী তাঁকে যৌন হেনস্থা করে৷ বাধ্য হয়ে ওই কলেজ ছাত্রী অনিলের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানান৷ তারপর থেকেই তাঁর কাছে অভিযোগ প্রত্যাহারের চাপ আসছিল৷ কিন্তু নিজের সিদ্ধান্তে অটল থাকে ওই পড়ুয়া৷

আরও পড়ুন: হিংসায় উস্কানি দেওয়ায় যোগীকে নোটিশ দিল সুপ্রিম কোর্ট

এরপর সোমবার কলেজ থেকে তাঁকে একা বের হতে দেখে হামলা করে অনিল৷ চুলের মুঠে ধরে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যায়৷ এরপর পাথর দিয়ে তাঁর মাথা থেঁতলে খুনের চেষ্টা করে৷ পরে রক্তাক্ত অবস্থায় ওই কলেজ পড়ুয়াকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা৷ অপরদিকে অনিলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ যৌন হেনস্থা ছাড়াও নতুন করে খুনের মামলা দায়ের হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে৷

Advertisement
---