কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে ঘেরাও তুলে নিলেন প্রেসিডেন্সির পড়ুয়ারা

স্টাফ রিপোর্টার,কলকাতা: ফের হল ছাত্র আন্দোলনের জয়৷ শনিবার সকালেই আন্দোলনকারী ছাত্রদের একটি দাবি মেনে মেধাতালিকা প্রকাশ করে দিয়েছিল প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ৷ এদিন সন্ধ্যায় আর একটি দাবিকেও মান্যতা দিলেন তাঁরা৷ দুঃস্থদের বর্ধিত কাউন্সেলিং রেজিস্ট্রেশন ফি ফিরিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিতে অবশেষে প্রায় ৫৫ ঘন্টা পর ঘেরাও তুলে নিল আন্দোলনকারীরা৷ তারপর? দাবি মানার আনন্দে আবির খেলায় মেতে উঠলেন উল্লসিত পড়ুয়ারা৷

মঙ্গলবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র আন্দোলনের জয়ের পর গত বুধবার থেকেই শুরু হয়েছে প্রেসিডেন্সিতে শুরু হয়েছিল পড়ুয়াদের আন্দোলন৷ এখানেও ভরতি সংক্রান্ত সমস্যা নিয়েই সোচ্চার হয়েছিল স্টুডেন্ট ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ার (এসএফআই) প্রেসিডেন্সি ইউনিট৷ এই বছর প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভরতির জন্য কাউন্সেলিং-এর রেজিস্ট্রেশন ফি গত বছরের একশো টাকা থেকে বাড়িয়ে পাঁচশো টাকা করে দিয়েছে জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ড৷ অবিলম্বে কমাতে হবে বর্ধিত রেজিস্ট্রেশন ফি৷ এই দাবিতে গত বুধবার পাঁচ ঘন্টা অবস্থান বিক্ষোভ করেন তাঁরা৷

কিন্তু, সেই বিক্ষোভে কাজ না হওয়ায় বৃহস্পতিবারেও অব্যাহত থাকে আন্দোলন৷ ওইদিন আন্দোলনে সামিল হয় প্রেসিডেন্সির ছাত্র সংগঠন আইসিও৷ বৃহস্পতিবার রাতভর চলে তাঁদের অবস্থান৷ ঘেরাও করে রাখা হয় রেজিস্ট্রার দেবজ্যোতি কোনার, কন্ট্রোলার, ডিন অফ সায়েন্স ও ডিন অফ আর্টসকেও৷ এই আন্দোলনে কাউন্সেলিং-এর রেজিস্ট্রেশন ফি কমানো সঙ্গে ভরতির মেধাতালিকা প্রকাশের দাবিও তোলা হয়েছে ছাত্রদের তরফ থেকে৷

- Advertisement -

শুক্রবার দুপুরে বিক্ষোভরত ছাত্রদের মুখোমুখি হয়ে রেজিস্ট্রার দেবজ্যোতি কোনার স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছিলেন, কাউন্সেলিং ফি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কিছু করতে পারবে না৷ তবে, বিক্ষোভকারীদের অন্য দাবি মেধাতালিকা প্রকাশের বিষয়টি দেখার জন্য তাঁদের এক থেকে দেড় ঘন্টা সময় চেয়েছিলেন৷ কিন্তু, নির্দিষ্ট সময় পার হয়ে গেলে আন্দোলনকারীদের জানানো হয়, এখনই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছাত্রদের দাবি পূরণ করতে পারবে না৷ এর জন্য সময় চাই৷ দাবি না মেটায় শুক্রবারও রাতভোর অবস্থান বিক্ষোভ চালিয়ে গিয়েছেন এসএফআই ও আইসির সদস্যরা৷

কিন্তু, শনিবার সকালেই আংশিক জয়ের মুখ দেখে আন্দোলনকারীরা৷ দেখা যায় প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়ছে ভরতির মেধাতালিকা৷ ছাত্র আন্দোলনের চাপে পড়েই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আন্দোলনকারীদে একটি দাবি মেনে নিয়েছে বলে মনে করেছিল সংশ্লিষ্ট মহল৷ কিন্তু, একটি দাবি মিটলেও, আরও একটি দাবি নিয়ে অনড় ছিলেন পড়ুয়ারা৷ চালিয়ে গিয়েছেন অবস্থান বিক্ষোভ ও ঘেরাও৷ অবশেষে, এদিন সন্ধে নাগাদ কাউন্সেলিং ফি কমিয়ে দেওয়ার দাবি নিয়ে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সমঝোতায় আসেন রেজিস্ট্রার দেবজ্যোতি কোনার৷

রেজিস্ট্রার জানান, দুঃস্থ যে সকল পড়ুয়া প্রেসিডেন্সিতে ভরতি হওয়ার সুযোগ পাবেন তাঁরা তাঁদের দুঃস্থতার প্রমাণ দিলে তাঁদেরকে বর্ধিত কাউন্সেলিং ফি অর্থাৎ, ৫০০ টাকার মধ্যে চারশো টাকা ফিরিয়ে দেওয়া হবে৷ আর যাঁরা দুঃস্থ অথচ, ভরতির সুযোগ পাননি, তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয়কে আবেদন করলে তাঁদেরকেও এই বর্ধিত ফি ফিরিয়ে দেওয়ার বিষয়ে বিবেচনা করবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ৷

মূলত দুঃস্থদের কথা ভেবেই কাউন্সেলিং ফি কমানোর দাবি তুলেছিলেন প্রেসিডেন্সি পড়ুয়ারা৷ তাই দুঃস্থদের বর্ধিত কাউন্সেলিং ফি ফিরিয়ে দেওয়ার আশ্বাসকে আন্দোলনের জয় হিসাবেই দেখেন প্রেসিডেন্সি পড়ুয়ারা৷ যবনিকা পতন হয় চারদিনের এই ছাত্র আন্দোলনের৷ তুলে নেওয়া হয় ঘেরাও৷ তারপর দুটি দাবিই পূরণের খুশিতে আবির খেলায় মাতেন তাঁরা৷

Advertisement
---