বিজয় রায়, কলকাতা: রাজ্যে সংঘ পরিবার ও বিজেপির উত্থান নিয়ে বামফ্রন্টকেই দুষল এসইউসিআই। সোমবারের দলের ৬৯ তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে শহিদ মিনারের পাদদেশে সভা করে প্রয়াত বাম নেতা শিবদাস ঘোষের দল। সেখানে দলের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষ ঘোষ বলেন, “দুঃখের হলেও সত্যি! বামফ্রন্টের জন্যই রাজ্যে গেরুয়াদের এত বাড়বাড়ন্ত হয়েছে।”

তবে শাসক দল তৃণমূল ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পর্কে একটি বাক্যও ব্যয় করল না এসইউসিআই নেতারা। যার ফলে রাজনৈতিক মহলে দানা বাঁধতে শুরু করেছে নয়া জল্পনা৷বৃহত্তর বাম ঐক্যের স্বপ্নে জল ঢেলে ফের একবার তৃণমূলের কংগ্রেসের সঙ্গেই আগামী দিনে জোটের পথ খোলা রাখল এসইউসিআই৷ এমনই মনে করা হচ্ছে৷

দলের প্রতিষ্ঠা দিবসের মঞ্চে প্রভাষ ঘোষের বক্তব্যের নিশানায় প্রথম থেকেই ছিল বিজেপি ও সংঘ পরিবার। তিনি বলেছেন, গেরুয়া রাজনীতির জেরেই দেশের নানান প্রান্তে দাঙ্গার মতো ঘটনা আকছার ঘটছে। রাজ্যে যে বিজেপির শক্তি বাড়ছে তাও স্বীকার করে নেন এই বামপন্থী নেতা। এর জন্যই সিপিএম নেতৃত্বাধীন বামফ্রন্টকেই কাঠগড়ায় তোলেন তিনি। এদিন প্রভাষ ঘোষ বলেন, ” এই রাজ্যে বিজেপি ও সংঘ পরিবারের শক্তি বাড়ছে। আর এই উত্থানের জন্য দায়ী বামফ্রন্ট। ”

একই সঙ্গে আরও এক ধাপ এগিয়ে আশি ছুঁই ছুঁই বাম নেতার আরও দাবি , “৩৪ বছরে এই রাজ্যে কিছুই করেনি বামফ্রন্ট। শুধু ভোটের রাজনীতিই করে গিয়েছে তারা। তাদের জন বিরোধী নীতি আর দিশাহীনতার জন্যই এই রাজ্যে বিজেপি ও সংঘ পরিবারের এই উত্থান।” তবে প্রভাষ ঘোষ এদিন সিপিএম ও বামফ্রন্টের বিরুদ্ধে যাই বলুক না কেন, তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তেমন সুর চড়াতে তাকে দেখা গেল না। বিশেষ করে রাজ্যে নারদ বা প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের দুর্নীতিতে বর্ষীয়ান এই বাম নেতা ছিলেন স্পিকটি নট!

রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা, প্রভাষ ঘোষের এদিনের বক্তব্য থেকে এটাই প্রমাণ হয়, তাদের প্রধান শত্রু এখনও সিপিএম।। আবার অনেকে বলছেন, সিপিএম তথা বামফ্রন্টকে তুলধনা করে, প্রভাষবাবু আসলে আগামী দিনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের সঙ্গে জোটের রাস্তাই খোলা রাখার চেষ্টা করলেন। জল ঢাললেন বৃহত্তর বাম ঐক্যের সম্ভাবনায়।

----
--