বর্ষ শুরুতেই অঝোরে কাঁদলেন কারাবন্দি সুমন চট্টোপাধ্যায়

কলকাতা: গত ১৩ দিন ধরে জেলে বন্দি অবস্থায় রয়েছেন সাংবাদিক সুমন চট্টোপাধ্যায়। গত মাসেই তাঁকে চিটফান্ড-কেলেঙ্কারিতে গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে ভুবনেশ্বরে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই আপাতত জেলে বন্দি তিনি।

এই কয়েকদিনে অনেক টানাপোড়েন হয়েছে। কলকাতা থেকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ভুবনেশ্বরে। আদালতেও তোলা হয়েছে একাধিকবার। জেলে যাওয়ার পর কিছুটা অসুস্থও হয়ে পড়েন তিনি। জেলে কেমন আছেন সুমন চট্টোপাধ্যায়, তাঁরই কলমে সেই অভিজ্ঞতার কথা ফেসবুকে প্রকাশ করলেন তাঁর স্ত্রী কস্তুরী চট্টোপাধ্যায়। বিশ্ব জুড়ে যখন বর্ষবরণের আনন্দ, তখন ভিনরাজ্যের জেলে বসে কাঁদলেন প্রবাদ-প্রতিম সাংবাদিক।

তিনি লিখছেন, ১৩ দিনে এই প্রথম বার আর আবেগ সংবরণ করতে পারলেন না তিনি। তাঁর কথায়, ”লোকে অগ্নিশুদ্ধ হয় বলে শুনেছি। আমি ক্রন্দন-শুদ্ধ হলাম।”

নববর্ষের সকালে কবিগুরুর লেখায় নিজেকে সাহস জুগিয়েছেন তিনি। আপনমনে গেয়ে উঠেছেন ‘বিপদে মোরে রক্ষা করো, এ নহে মোর প্রার্থনা।’

‘অভয় মোর না যদি জোটে/ নিজের বল না যেন টুটে/ সংসারেতে লভিলে ক্ষতি/ বহিলে শুধু বঞ্চনা/ নিজের মানে না যেন মানি ক্ষয়।’ এই লাইনগুলো গাইতে গাইতে অঝোরে কেঁদেছেন তিনি।

জেলের ভিতর প্রত্যেকটা দিন কী ধরনের অভিজ্ঞতায় গা সইয়ে নিতে হচ্ছ তাঁকে, সেকথাও উল্লেখ করেছেন এই লেখায়। কয়েদিদের সঙ্গে দিন কিংবা রাত কাটানো, সকালে প্রহরীর গুনতি- এসবের মধ্যেই কাটাতে হচ্ছে সুমন চট্টোপাধ্যায়কে। সবশেষে নতুন বছরে তিনি নিজের কাছে শপথ করেছেন, ‘নিজের মানে না যেন মানি ক্ষয়।’

কস্তুরী চট্টোপাধ্যায়ের এই ফেসবুক পোস্টের কমেন্ট বক্সে অনেকেই সুমনবাবুর প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। তাঁর অনুরাগীদের আশা, খুব তাড়াতাড়ি ফিরে আসবেন তিনি।

---- -----