‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ জ্বালা কমিয়েছে, বলছে বাংলার উরি শহিদের ভাই

শেখর দুবে, ধূলাগড় : ‘হাও ইজ দ্য জোশ? হাই স্যার?’ সম্প্রতি এই ডায়লগ শোনা গিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মুখেও। ‘উরি: দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ সিনেমার দৌলতে এই ডায়লগ এখন ভারতের সিনেমাপ্রেমীদের মুখে মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

একই রকম ‘হাই জোসের’ ছবি ধরা পড়ল হাওড়ার জগৎবল্লভপুরে বেলে প্রতাপপুরের বরুণ দলুইয়ের গলায়। বরুনের বয়স এখনও ১৮-র নীচে। সদ্য কলেজ শুরু হয়েছে। তাতে কী? বরুন আর্মিতে যোগ দিতে চায়। বরুণ, উরি-তে শহিদ হওয়া গঙ্গাধর দলুইয়ের ছোট ভাই।

‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ কি কোথাও গিয়ে তোমাদের জ্বালা কিছুটা কমিয়েছে? উরি হামলাতে শহিদ গঙ্গাধর দলুইয়ের ভাইকে এই প্রশ্নটা করে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি। “হ্যাঁ অনেকটাই কমিয়েছে। মাত্র এগারো দিনের মাথায় কেন্দ্র সরকার এরকম স্টেপ নেবে এটা ভাবিনি।”

প্রায় তিনবছর আগে ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬ কাশ্মীরের উরি সেনা ছাউনিতে পাকিস্তানি সন্ত্রাসবাদীরা হামলা করেছিল। সেখানেই শহিদ হয়েছিলেন বাংলার ছেলে গঙ্গাধর দলুই। সে ঘটনার রেশ এখনও লেগে দলুই পরিবারে। দাদার মৃত্যুর ৩ বছরও পার হয়নি। বাড়িতে চারিদিকে সাজানো গঙ্গাধরের ছবি, পদক।

এসবের মাঝে ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ নিয়ে আবেগ ধরা পড়ল বরুণ দলুইয়ের গলায়। তার বক্তব্য, “শুধু আমাদের নয়, প্রতিটি শহিদ পরিবারের কাছে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক অনেকটা মলমের মতো। দাদা ফিরে আসবে না জানি। কিন্তু পাকিস্তানকে শিক্ষা দেওয়া দরকার। ওরা দাদার সঙ্গে যে কাপুরুষের মতো অন্যায় করেছে তার জবাব দিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই অপারেশনের অনুমতি দিতে ভয় পাননি, ওনাকে ধন্যবাদ।”

‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ নিয়ে উন্মাদনা প্রথম থেকেই তুঙ্গে। ২০১৬ সালে ১৮ সেপ্টেম্বর উরি হামলার বদলা নিতে এগারোদিনের মাথায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর গোপন অপারেশন ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’। যা নিয়ে প্রশংসা এবং সমালোচনা দুটোরই সম্মুখীন হতে হয়েছিল মোদী-সরকারকে। অরবিন্দ কেজরিওয়াল সহ অনেক বিজেপি বিরোধী নেতাই ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের’ প্রমাণ হিসেবে ভিডিও চেয়েছিলেন।

২০১৯ শুরুতেই আদিত্য ধর ‘উরি হামলা’ এবং ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’কে একসঙ্গে সিনেমার পর্দায় আনলেন। ‘উরি: দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার কয়েকদিনের মধ্যে একশো কোটির ক্লাবে ঢুকে পড়েছে। সিনেমাটা দেখেছো? প্রশ্নের উত্তরে বরুণ জানালো, “না এখনও দেখা হয়নি। ট্রেলার দেখেছি। দারুণ লেগেছে। আমাদের এখানকার হলে সিনেমাটা এখনও আসেনি।” তবে সিনেমাটা দেখতে ভীষণ আগ্রহী বরুণ।