নয়াদিল্লি : দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নতির লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার ২+২ বৈঠকে বসে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ দুদেশের স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপের সমন্বয় সাধনের উদ্দ্যেশেই এই বৈঠক বলে মত বিশেষজ্ঞ মহলের৷ বৈঠকে ছিলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ৷ অন্যদিকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে ছিলেন বিদেশ সচিব মাইকেল আর পম্পেও এবং প্রতিরক্ষা সচিব জেমস এন ম্যাটিস৷

নিজের বক্তব্যে এদিন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেন ২০১৭ সালের জুলাই মাস থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের প্রভূত উন্নতি হয়েছে৷ এই সময়েই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নতিতে বৈঠকে বসেন৷ সেই সম্পর্ক ইতিবাচক পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই এই বৈঠকের লক্ষ্য৷

পম্পেও বলেন দুদেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক প্রক্রিয়া যাতে সুষ্ঠু ভাবে এগোতে পারে, তার জন্য সব সময় সচেষ্ট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ পারস্পরিক আলোচনা, বৈঠক ও যোগাযোগ স্থাপনের মাধ্যমেই তা সম্ভব৷ তাই এই বৈঠকের প্রয়োজন ছিল৷ বাণিজ্য, জলপথে যোগাযোগ ও দুদেশের অর্থনীতি বিষয়ক বিভিন্ন আলোচনা এই বৈঠকে চলবে৷ এছাড়াও মূল আলোচ্য বিষয় হিসেবে থাকবে দুদেশের নিরাপত্তা৷

গণতান্ত্রিক কাঠামোয় আলোচনায় বিশ্বাসী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলে জানান মার্কিন বিদেশ সচিব৷ জল ও বায়ুপথে যোগাযোগ বৃদ্ধি এবং সমুদ্রপথের কিছু সমস্যা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে এই বৈঠকের মাধ্যমে বলে আশা মাইক পম্পেওর৷

এই বৈঠকে বক্তব্য রাখেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারমণও৷ তিনি বলেন দুদেশের মধ্যে পারস্পরিক আলোচনার ভিত্তিতে নিরাপত্তা মজবুত করার ঐক্যমতে পৌঁছেছে দুই দেশ৷ গত বেশ কয়েক বছরের সম্পর্ককে আরও জোরদার করার লক্ষ্যে ভারত ও আমেরিকা কাজ করে যাবে৷

এর আগে, ভারতের সঙ্গে ২+২ বিদেশ এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী পর্যায়ে বৈঠকের নতুন তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ধার্য করে যুক্তরাষ্ট্র। এই বৈঠক জুলাই মাসেই অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিলো। কিন্তু, ২৭ শে জুন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অজ্ঞাত কারণে এই বৈঠক বাতিল করে দেয়। সেসময় বৈঠকটি ওয়াশিংটনে হওয়ার কথা ছিলো। তবে এবার বৈঠকের জন্য বেছে নেওয়া হয় নয়া দিল্লিকেই৷

এই বৈঠক প্রসঙ্গে হোয়াইট হাউজ মুখপাত্র সারা স্যান্ডার্স জানান, দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নতি করতে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসন। ভারতের সঙ্গে এই বৈঠক সেই চেষ্টারই ফলস্বরূপ৷  এর আগে অবশ্য গত বছরের জুনে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্প-মোদীর মাঝে এক বৈঠকের পর তারা এরকম একটি বৈঠকের ব্যাপারে সম্মতি প্রকাশ করেছিলেন। তবে, পরবর্তী কালে ইরান ও রাশিয়ার সঙ্গে ভারতের বাণিজ্য সম্পর্ক নিয়ে কিছু মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়৷ মনে করা হয়, সেই ঘটনার পরেই জুলাইয়ের বৈঠক বাতিল করে যুক্তরাষ্ট্র।

----
--