স্টাফ রিপোর্টার, রায়গঞ্জ: সর্বভারতীয় সংগীত পরিষদ আয়োজিত অল ইন্ডিয়া মেরিট টেস্টে আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় গোটা দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে রায়গঞ্জের নাম উজ্জ্বল করল সুস্মিতা দাস।

সর্বভারতীয় সংগীত পরিষদ সূত্রে জানা গিয়েছে, কলকাতার সিমলা এলাকায় পর্ষদ আয়োজিত আবৃত্তি পরীক্ষায় এবছর দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে বাচিক শিল্পীরা অংশ নিয়েছিল। এ বছর নাচ গান আবৃত্তির মতো বিভিন্ন বিষয়ে প্রায় দুই হাজার ছাত্রছাত্রী অংশ নিয়েছিল।

পর্ষদের সম্পাদক কাজল সেনগুপ্ত জানান, দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সুস্মিতা দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে। গোটা দেশ থেকে প্রায় দুই হাজার ছাত্রছাত্রী বিভিন্ন বিভাগে অংশ নিয়েছে। সর্বভারতীয় স্তরের এই প্রতিযোগিতায় যারা উত্তীর্ণ হয়েছে তাদের সকলকেই আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি কলকাতার মহাজাতি সদনে পুরস্কৃত করা হবে। সেই সঙ্গে ওইদিন বিশিষ্ট নাট্যকার মনোজ মিত্র এবং নৃত্যশিল্পী ও অভিনেত্রী মমতা শংকরকে সম্বর্ধনা জানানো হবে।

পরীক্ষার ফলাফলে স্বভাবতই আপ্লুত সুস্মিতা। সুস্মিতা জানায়, খুব ছোট বয়স থেকেই আবৃত্তির ওপর একটা ভালোবাসা তৈরি হয়েছিল। বাবা মায়ের অনুপ্রেরণায় রায়গঞ্জের কথামঞ্জরী শিক্ষাকেন্দ্রে নিয়মিত আবৃত্তি চর্চা শুরু করে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করার পাশাপাশি সর্বভারতীয় বিভিন্ন আবৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে বহুবার। কিন্তু পড়াশোনার পাশাপাশি আগামীতে এই বাচিক শিল্পের বিভিন্ন রিসার্চ সংক্রান্ত কাজ মাধ্যমে নিজের বিশেষ পরিচিতি তৈরি করতে চায় সুস্মিতা।

সুস্মিতার আবৃত্তির শিক্ষিকা জাগরী ধর বলেন, অনেকেই খুব ছোট বয়স থেকে আবৃত্তি শেখার জন্য আসে কিন্তু নিজেকে ভবিষ্যতের আবৃত্তি শিল্পী হিসেবে তুলে ধরার স্বপ্ন নিয়ে দু এক জনকেই আসতে দেখা যায়। এক্ষেত্রে সুস্মিতার আগাগোড়াই স্বপ্ন ছিল একজন প্রতিষ্ঠিত আবৃত্তি শিল্পী হওয়ার। শিক্ষিকা হিসেবে নিজের সফলতার থেকেও বেশি ছাত্রছাত্রীদের সফলতা অনেক বেশি আনন্দ দেয়। আবৃত্তির মত বাচিক শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে সুস্মিতার মতো আরও ছাত্রছাত্রীদের এগিয়ে আসা উচিত।

©Kolkata24x7 এই নিউজ পোর্টাল থেকে প্রতিবেদন নকল করা দন্ডনীয় অপরাধ৷ প্রতিবেদন ‘নকল’ করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে ----
----