স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: শিলিগুড়ির আকাশে ড্রোন৷ তাও আবার এমন একটা সময়, যখন উত্তরবঙ্গের এই শহরে উপস্থিত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ ফলে এ নিয়ে হইচই শুরু হয়েছে৷

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার রাতের দিকে আকাশে উড়ছিল ওই ড্রোনটি৷ আচমকা সেটি শিলিগুড়ির ফাঁসিদেওয়া থানা এলাকায় এসে পড়ে৷ সঙ্গে সঙ্গে সেটিকে সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ৷ শুরু হয় তদন্ত৷

Advertisement

আরও পড়ুন: মারণ গুহার বাইরে এল ১১ শিশু

মুখ্যমন্ত্রী এখন উত্তরবঙ্গ সফরে রয়েছেন৷ ফলে সেখানে পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা বেশ আঁটোসাঁটো৷ এই পরিস্থিতিতে আকাশে ড্রোন উড়তে থাকায় স্বাভাবিকভাবেই হইচই শুরু হয়েছে৷ মুখ্যমন্ত্রীর সফর চলাকালীন আকাশে কীভাবে ড্রোন চলে এলে, তা খতিয়ে দেখতে শুরু করেছেন পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকরা৷

পুলিশের একটি সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, ড্রোন ওড়াতে গেলে পুলিশের অনুমতি প্রয়োজন৷ কোন এলাকার উপর তা উড়বে, সেই তথ্য জানাতে হয় পুলিশকে৷ এক্ষেত্রে অনুমতি নেওয়া হয়েছিল কি না, তা খতিয়ে দেখছে শিলিগুড়ির ফাঁসিদেওয়া থানার পুলিশ৷ পুলিশের একাংশের দাবি, সাধারণত অনুমতি দেওয়ার কথা নয়৷ কারণ, মুখ্যমন্ত্রীর সফরের জন্য নিরাপত্তার ব্যবস্থা আঁটোসাঁটো করা হয়েছে৷ তাই এই ধরনের ড্রোন ওড়ানোর অনুমতি দেওয়া হয়নি বলেই ধারণা পুলিশ আধিকারিকদের একাংশের৷

আরও পড়ুন: ‘একটা নির্দিষ্ট সম্প্রদায়কে টার্গেট করা হলে খারাপ লাগে’

ফলে প্রশ্ন উঠছে, তাহলে কি নাশকতার ছক কষেই ড্রোন ওড়ানো হয়েছিল? মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিঘ্নিত করতেই কি কাজ? পুলিশের শীর্ষ কর্তারা এই নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন৷ তদন্ত শেষের আগে তাঁরা এ বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ৷

পুলিশের একটি সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, কারা ওই ড্রোন ওড়াচ্ছিল, সেটাই আপাতত খোঁজা হচ্ছে৷ সেই প্রশ্নের উত্তর মিললেই নাশকতার ছক ছিল কি না, সেটিই স্পষ্ট হবে বলে তদন্তাকারীদের ধারণা৷

আরও পড়ুন: ফুটবলবিশ্বের নজর থাকবে বেলজিয়ামের ডাগআউটে

প্রসঙ্গত, পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে একটি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন যে তাঁকে খুন করার ছক কষা হচ্ছে৷ সুপারি দেওয়া হয়েছে৷ তাঁর কালীঘাটের বাড়িতে রেকি করা হয়েছে৷ তার পর তা নিয়ে ব্যাপক হইচই হয়েছিল রাজনৈতিক মহলে৷ তার পর শিলিগুড়ির এই ঘটনা৷ ফলে এ নিয়ে উদ্বিগ্ন পুলিশ ও প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা৷

আরও পড়ুন: প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে ‘অযোগ্য’ বললেন দলেরই নেতা

----
--