‘স্বচ্ছ ভারতের লক্ষ্য পূরণ হলে তিন লক্ষ মৃত্যু ঠেকানো যাবে’

নয়াদিল্লি: ২০১৯-এর অক্টোবরের মধ্যে ভারত যদি একশো শতাংশ পরিচ্ছন্ন শৌচাগার তৈরির লক্ষ্য সম্পূর্ণ করতে পারে তাহলে ডায়রিয়া ও অপুষ্টিজনিত রোগে মৃত্যু কিছুটা হলেও কমানো যেতে পারে। ওয়াল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন উল্লেখ করেছে ২০১৪ সালে স্বচ্ছ ভারত অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে শুধুমাত্র ডায়রিয়া ও অপুষ্টিজনিত কারনে মারা গিয়েছেন প্রায় তিন লক্ষ মানুষ ।

‘হু’ আশা করছে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের মধ্যে যদি সব ধরণের পরিচ্ছন্ন ব্যাবস্থা যদি গ্রহণ করার পাশাপাশি মানুষের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তোলা যায় তাহলে প্রায় ১৪ মিলিয়ন বছর সুস্থ জীবন যাপন করা সম্ভব।

বিশেষভাবে উল্লেখ্য , ২০১৪ সালে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের আগে বছরে প্রায় ১৯৯ মিলিয়ন মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হন। ‘হু’ জানিয়েছে পরিচ্ছন্ন শৌচাগার তৈরির ফলে শুধু ভারত নয় বিশ্ব জুড়ে এই সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে। ভারতে ‘স্বচ্ছ ভারত অভিযান’ শুরু করার পর ২০১৬ থেকে ২০১৮-র মধ্যে বাড়িতে শৌচাগার ব্যাবহার করার পরিমাণ ২ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩ শতাংশ।

- Advertisement -

চলতি আর্থিক বছরে ‘স্বচ্ছ ভারত মিশন – গ্রামীণ’-এ গ্রামের শৌচালয় ব্যবস্থার উন্নতির জন্য অতিরিক্ত ১৫ হাজার কোটি টাকা ধার্য করা হয়েছে। শুধুমাত্র ভারতেই নয় দক্ষিণপূর্ব এশিয়া সহ সমগ্র বিশ্বে এই সমস্যা রয়েছে। বিশুদ্ধ জল ও উপযুক্ত স্যানিটেশনের অভাবে যে পাঁচটি রোগে সবচেয়ে বেশী মানুষ প্রাণ হারান তার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ডাইরিয়া। ‘হু’ জানিয়েছে ভারত যে উদ্দেশ্য নিয়ে এগোচ্ছে তার প্রভাব উল্লেখযোগ্য হতে পারে। এটি অপুস্টিগত অসুখ থেকে বিভিন্ন শ্বাস কষ্ট জনিত রোগের সমাধান করতে পারে।

বিশুদ্ধ পানীয়জল ও ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতা গ্রহন করতে সচেতন করতে হবে মানুষকে। উন্নয়নের লক্ষ্যে সমস্ত দেশের মানুষ কে কাজ করতে হবে। প্রসঙ্গত ‘ হু ‘ র অন্তরগত সাউথ ইস্ট এশিয়ার দেশ গুলির মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ, ভুটান , ডেমোক্র্যাটিক পিপলস রিপাবলিক অফ কোরিয়া , ভারত , ইন্দোনেশিয়া , মালদাভিস , মায়ানমার , নেপাল , শ্রীলঙ্কা , থাইল্যান্ড ও টিমর লেস্ট।

Advertisement ---
---
-----