গান্ধীজির পর পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভূক্ত হতে চলেছেন স্বামীজি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: গান্ধীজির জীবনীর পর এবার বিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভূক্ত হতে চলেছে স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতা৷ আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকেই চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির পাঠ্যক্রমে মহাত্মা গান্ধীর জীবনী অন্তর্ভূক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে নবান্নতে৷ সূত্রের খবর, প্রাথমিকে গান্ধীর পর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভূক্ত করা হতে চলেছে স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতা৷

স্কুল শিক্ষা দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতাকে পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর ইচ্ছা মতোই এবার বিদ্যালয়ের বইয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে শিকাগো বক্তৃতা৷ জানা গিয়েছে, এই বক্তৃতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যক্রমে যোগ করা হবে৷
এই বিষয়ে জানতে সিলেবাস কমিটির চেয়ারম্যান অভীক মজুমদারকে ফোন করা হয়৷

পড়ুন: ছোট্ট দুর্গাদের অসহায়তাই থিম এই পুজো মণ্ডপের

- Advertisement -

কিন্তু, এবিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি তিনি৷ তাঁর বক্তব্য, ‘‘এবিষয়ে যা বলার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ই বলবেন৷’’ তবে জানা গিয়েছে, এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বৈঠক করতে চলেছে সিলেবাস কমিটি৷

তবে, স্বামী বিবেকানন্দকে পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি নতুন নয়৷ এ নিয়ে সিদ্ধান্ত এই বছরের মার্চ মাসেই নেওয়া হয়ে গিয়েছিল৷ শিকাগো বক্তৃতার ১২৫ বছর উদযাপন উপলক্ষ্যে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে৷ গত মার্চ মাসে এই কমিটির সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এই বৈঠকেই রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের প্রস্তাব মেনে স্বামীজির শিকাগো বক্তৃতাকে পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল৷ কিন্তু, কোন শ্রেণিতে এই অন্তর্ভুক্তিকরণ করা হবে সেই নিয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে স্থির করা হয়েছিল৷

কোন শ্রেণিতে এই অন্তর্ভূক্তিকরণ হবে তা স্থির হয়ে গিয়েছে৷ সূত্রের খবর, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের কোন শ্রেণিতে, কোন বিষয়ে ও কোন ভাষায় এই বক্তৃতা যোগ করা হবে তা নিয়েই আলোচনা করতে বৈঠক করবে সিলেবাস কমিটি৷

পড়ুন: পুরনো পদ্ধতিতেই জল বাঁচাবে রাজ্য সরকার

কিছু দিন আগেই প্রাথমিক স্তরের পাঠ্যক্রমে মহাত্মা গান্ধীর জীবনী অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে৷ এই বছরই গান্ধীজির জন্ম সার্ধশতবর্ষ৷ কীভাবে এই সার্ধশতবর্ষ পালন করা হবে সেই বিষয়ে আলোচনা করতে নবান্নে মন্ত্রীসভার বৈঠক হয়৷ এই বৈঠকেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভূক্ত করা হবে মহাত্মা গান্ধীর জীবনী ও স্বাধীনতা আন্দোলনে তাঁর অবদানের কথা৷

এর আগে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে গান্ধীজির জীবনী পড়ানো হত৷ এবার প্রাথমিক স্তরেও নিয়ে আসা হল বাপুকে৷ গান্ধীজির জীবনী পড়ানো হবে চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির ইংরেজি ও পরিবেশবিদ্যায়৷ গান্ধীজির এবার পাঠ্যক্রমে স্থান পেতে চলেছেন স্বামী বিবেকানন্দও৷

Advertisement
---