জেলায় ফুটবলের পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন তুললেন স্বপন দেবনাথ

পূর্ব বর্ধমান : অনুর্ধ্ব ১৭ যুব বিশ্বকাপ উপলক্ষে সোমবার পূর্ব বর্ধমান জেলার পুলিশ লাইনে আয়োজিত হয়েছিল বল প্রদান অনুষ্ঠান৷ মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে বল প্রাপকদের রীতিমত চোখে আঙুল দিয়ে সমালোচনায় বিঁধলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ।

সোমবার পূর্ব বর্ধমান জেলায় ১৫০০টি বিভিন্ন স্কুল, মাদ্রাসা এবং ক্লাবের হাতে মোট ৭৫০০টি বল তুলে দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে স্বপনবাবু বলেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে মমতা বন্দোপাধ্যায় বিভিন্ন ক্লাবের উত্কর্ষতা বাড়াতে, ক্লাবগুলিকে জনমুখী এবং খেলাধূলা ও সংস্কৃতির বিকাশে তাদের আর্থিক সাহায্য দিচ্ছেন। বিগত বছরে বিভিন্ন ক্লাবকে ৫ লাখ টাকা করে দেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত পূর্ব বর্ধমান জেলায় ৮৭১টি ক্লাবকে এই সরকারী আর্থিক সাহায্য দেওয়া হয়েছে। এবছরও বেশ কিছু ক্লাবকে ২ লাখ টাকা দেওয়া হচ্ছে। এরপরই স্বপনবাবু প্রশ্ন তোলেন, যে উদ্দেশ্য নিয়ে ক্লাবগুলিকে এই আর্থিক সাহায্য তুলে দেওয়া হচ্ছে সেই উদ্দেশ্য কতটা পূরণ হচ্ছে? তিনি বলেন, এদিন ৭৫০০টি বল দেওয়া হচ্ছে। হিসাব অনুযায়ী পূর্ব বর্ধমান জেলায় ৭৫০০টি ফুটবল দল গঠন হওয়ার কথা। প্রতিটি ব্লকে স্পোর্টস অফিসার রয়েছে। কিন্তু সেভাবে ফুটবলের দল তৈরি হচ্ছে না। কোনও টুর্নামেণ্ট করতে গেলে ফুটবল টিমের অভাব চোখে পড়ে।

স্বপনবাবু এদিন প্রতিটি পাড়ায় পাড়ায় ফুটবল দল গঠন করার জন্য আহ্বানও জানান। এরই পাশাপাশি তিনি ইংলিশ চ্যানেল জয়ী কালনার সাঁতারু সায়নী দাসের বাবার ঋণ পরিশোধের জন্য জেলা পরিষদের সভাধিপতি, জেলা পুলিশ সুপার সহ সকলের কাছে আবেদন করেন। এদিন বর্ধমান পুলিশ লাইনে এই ফুটবলপ্রদান অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে হাজির ছিলেন মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী, রাজ্য পুলিশের আইজি বর্ধমান রেঞ্জ রাজেশ কুমার সিং, সভাধিপতি দেবু টুডু, জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব, সাংসদ মুমতাজ সংঘমিতা, প্রাক্তন দুই ফুটবলার বিদেশ বসু, মানস ভট্টাচার্য সহ বিধায়ক, কাউন্সিলার প্রমুখরাও।

Advertisement ---
-----