জাকার্তা: এশিয়ান গেমসের ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে ভারতের পঞ্চম সোনা এল বাংলার মেয়ে স্বপ্না বর্মণের হাত ধরে৷ অ্যাথলেটিক্সে মহিলাদের মাল্টি ইভেন্ট ডিসিপ্লিন হেপ্টাথ্লনের গোল্ড মেডেল গলায় ঝোলালেন স্বপ্না৷

আরও পড়ুন: স্বপ্নার সাফল্যে সোনালি আলোয় ভাসছে জলপাইগুড়ি

Advertisement

সাতটি ইভেন্টের শেষে স্বপ্নার সম্মিলিত পয়েন্ট দাঁড়ায় ৬০২৬৷ হেপ্টাথ্লনে ভারতের অপর প্রতিনিধি পূর্ণিমা হেমব্রম ৫৮৩৭ পয়েন্ট সংগ্রহ করে চতুর্থ স্থানে থেকে প্রতিযোগিতা শেষ করেন৷

আরও পড়ুন: হকির জাদুগরের জন্মদিনে এশিয়ান গেমসের ফাইনালে ভারত

চলতি এশিয়ান গেমসের ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে এপর্যন্ত পাঁচটি সোনা জিতলেও স্বপ্নার গোল্ড মেডেল ঐতিহাসিক সন্দেহ নেই৷ কারণ, এর আগে কোনও ভারতীয় এশিয়ান গেমসের হেপ্টাথ্লনে সোনা জিততে পারেননি৷ তাছাড়া ষষ্ঠ মহিলা হিসাবে এই ডিসিপ্লিনে ছ’হাজার পয়েন্টের মাইলফলক ছাড়িয়ে যান বাংলার অ্যাথলিট৷

চোয়ালের ব্যাথাকে সঙ্গী করেই ট্র্যাকে নেমেছিলেন স্বপ্না৷ প্রতিটা ইভেন্টেই রীতিমতো অস্বস্তিতে ছিলেন তিনি৷ বিশেষ করে হাইজাম্প ও লংজাম্পে প্রতিটা লাফের পরেই যন্ত্রণাকাতর দেখিয়েছে তাঁকে৷ সোনা জয়ের পর যন্ত্রণার প্রসঙ্গ উঠতে স্বপ্নার সংক্ষিপ্ত উত্তর, ‘যন্ত্রণা ছিল৷ তবে গত চার বছর ধরে যেভাবে কঠোর অনুশীলন চালিয়ে গিয়েছি, তার ফল পেয়ে আর যন্ত্রণার কথা মাথায় আসছে না৷’

আরও পড়ুন: এশিয়ান গেমসে জোড়া পদক দ্যুতি চাঁদের

১০০ মিটারে পঞ্চম স্থানে শেষ করে ৯৮১ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছিলেন স্বপ্ন৷ হাই জাম্পে প্রথম হয়ে ১০০৩ পয়েন্ট ঘরে তোলেন তিনি৷ শট পাটে দ্বিতীয় হয়ে ৭০৭ পয়েন্ট যোগ করেন নিজের খাতায়৷ পরবর্তী ২০০ মিটার ইভেন্টে স্বপ্না সব থেকে খারাপ পারফরম্যান্স করেন৷ সপ্তম স্থানে শেষ করে ৭৯০ পয়েন্ট আদায় করেন তিনি৷

লংজাম্পা দ্বিতীয় হওয়ায় ৮৬৫ পয়েন্ট পান৷ জ্যাভেলিন থ্রো’য়ে প্রথম হয়ে সংগ্রহ করেন ৮৭২ পয়েন্ট৷ শেষে ৮০০ মিটারে চতুর্থ হয়ে কুড়িয়ে নেন ৮০৮ পয়েন্ট৷

আরও পড়ুন: জাতীয় ক্রীড়া দিবসে ধ্যানচাঁদকে শ্রদ্ধা প্রধানমন্ত্রীর

তিনটি স্প্রিন্ট ইভেন্টেই স্বপ্নার থেকে এগিয়ে ছিলেন পূর্ণিমা৷ তবে জাম্প ও থ্রো ইভেন্টগুলিতে পাল্লা দিতে না পারায় পোডিয়াম ফিনিশ করতে পারেননি হেমব্রম৷

----
--