উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে বৈঠকে বসবে সিরিয়া?

পিয়ংইয়ং: নতুন নতুন সমীকরণ দেখা দিচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের মানচিত্রে৷ ট্রাম্প কিমের পর এবার আলোচনায় কিম-আসাদ বৈঠক৷ এবার কূটনৈতিকদের নজর উত্তর কোরিয়া ও সিরিয়ার বৈঠকের দিকে৷ উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠক করতে উত্তর কোরিয়া যাচ্ছেন সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ। তবে কবে এই বৈঠক হবে এখনও তা সরকারি ভাবে জানায়নি পিয়ংইয়ং৷

তবে মার্কিন সংবাদ মাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল প্রেসিডেন্ট হাউস সূত্র দিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ তারা জানিয়েছে বাশার আল-আসাদ উত্তর কোরিয়া যাচ্ছেন৷ যদি এই সফর সফল হয়, তাহলে এই সফর হবে উত্তর কোরিয়া ও তার বন্ধুরাষ্ট্রগুলির কূটনৈতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে এক বড় ঘটনা৷

তবে এই বৈঠক চমক সৃষ্টি করেনি৷ কারণ সিরিয়া ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে৷ দুই দেশের জাতীয় দিবসে শুভেচ্ছা বিনিময় করে উত্তর কোরিয়া ও সিরিয়া৷ ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, গত ৩০ মে উত্তর কোরিয়ার নতুন রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র গ্রহণের সময় প্রেসিডেন্ট আসাদ উত্তর কোরিয়া সফরের কথা জানিয়েছেন। সে সময় তিনি উত্তর কোরিয়ার নেতার কূটনৈতিক দক্ষতার প্রশংসা করেছেন।

- Advertisement -

উল্লেখ্য, এ বছরের শুরুতেই কিম, চিন ও দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টদের সাথে বৈঠক করেছেন। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে ১২ জুন সিঙ্গাপুরে একটি বৈঠক নির্ধারিত হয়েছে৷ ২০১১ তে ক্ষমতায় আসার পর থেকে ২০১৮ সালের আগে পর্যন্ত আর কোনও রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গে বৈঠক করেননি কিম৷
সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদ উত্তর কোরিয়া সফর আশাবাদী৷ রবিবার উত্তর কোরিয়ার সংবাদমাধ্যম রোডোং সিন্নাম এ খবর জানিয়েছে৷

বাসার আল আসাদ উত্তর কোরিয়ার কূটনীতিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় তার বাবার কথা মনে করেন৷ প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট হাফিজ আল আসাদের কথা বার বার উঠে আসে আলোচনায়৷ হাফিজ আল আসাদের উদ্যোগেই প্রথম উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সিরিয়ার কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হওয়ার কথা উল্লেখ করেন তিনি৷ তিনি এও আশাপ্রকাশ করেন যে দুই কোরিয়া একদিন এক হবে৷  রাসায়নিক হামলা চালানোর অভিযোগে সিরিয়ায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপের কয়েকটি দেশ। অন্যদিকে উত্তর কোরিয়াকে পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র বর্জন করাতে দীর্ঘদিন ধরে চাপ দিয়ে আসছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷

Advertisement ---
---
-----