এই তিথিতেই তন্ত্রসাধনায় তারাপীঠ মহাশ্মশানে সিদ্ধিলাভ করেছিলেন বামাক্ষ্যাপা

বাসুদেব ঘোষ, সিউড়ি: সিদ্ধপীঠ তারাপীঠ৷ প্রতিবছর ভাদ্র মাসে তিথি মেনে হয় কৌশিকী অমাবস্যা। কথিত আছে, এই বিশেষ তিথিতে তন্ত্রসাধনা করে তারাপীঠ মহাশ্মশানে সিদ্ধিলাভ করেছিলেন সাধক বামাক্ষ্যাপা। সেই সময় থেকেই দিনটি বিশেষভাবে পালিত হয়। এবার শনি ও রবিবার পড়ায় কৌশিকী আমাবস্যায় অন্যবারের তুলনায় তারাপীঠে ভিড় বেশি হবে বলে মনে করা হচ্ছে৷

শুক্রবার থেকেই ভিড় জমতে শুরু করেছে তারাপীঠে৷ এরাজ্যের বিভিন্নপ্রান্ত সহ সংলগ্ন সব রাজ্য থেকেও ভক্তদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মত৷ সময় যত এগোবে এই ভিড় কয়েকগুণ বাড়বে বলে আশা সেবেয়েতদের৷

- Advertisement DFP -

শনিবার রাতে কৌশিকী অমাবস্যা লাগছে রাত্রি লাগছে রাত ১:৫২ মিনিটে৷ অমাবস্যা থাকছে পরেরদিন রাত ১১:৪০ পর্যন্ত৷ ফলে ভক্তরা পুজো দিতে পারবেন দীর্ঘ সময় ধরে৷ মায়ের দর্শনের জন্য মন্দির খোলা থাকবে সারা রাত৷ ফলে নিরাপত্তার দিকে বিশেষ নজর দিয়েছে তারাপীঠ মন্দির কর্তৃপক্ষ ও জেলা পুলিশ প্রশাসন৷

আরও পড়ুন: তারাপীঠ মন্দিরে সেলফিতে ‘ইতি’

মন্দির ও পূণ্যার্থীদের সূরক্ষার জন্য শুক্রবার বিকেল থেকেই মন্দির চত্বরে প্রচুর পুলিশকর্মী ও সিভিক ভলান্টিয়ার মোতায়েন করা হয়েছে৷ মন্দির কমিটির নিজস্ব উদ্যোগে রয়েছে ৩০০ রক্ষী৷ নজরদারির জন্য মন্দির চত্বরে উড়বে ড্রোন৷ কোনো রকম অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে রাখা হয়েছে রিজার্ভ ফোর্স। সাথে রাখা হয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে মহিলা পুলিশও। পাশাপাশি এলাকার হোটেলগুলিতেও নজর রাখছে পুলিশ প্রশাসন৷

ভক্তদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে মায়ের পুজো শেষে ভক্তদের বের করা হবে মন্দিরের অপর একটি দরজা দিয়ে৷ ভিআইপিদের জন্য বিশেষ আয়োজন৷ তারাপীঠ মন্দির কমিটির সভাপতি তারাময় মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘গত বারের তুলনায় এবার প্রচুর ভক্তের সমাগম হবে তারাপীঠ মন্দিরে৷ কারণ এবার কৌশিকী অমাবস্যা শনি ও রবিবার ছুটির দিন পড়ে যাওয়ায় সভাবতই চোখে পড়ার মতো ভিড় থাকবে। তাই আমাদের তরফে সমস্ত রকম প্রস্তুতি প্রায় শেষ৷’’

Advertisement
----
-----