রানওয়ে থেকে মসজিদ সরিয়ে ফেলার দাবি তসলিমার

নয়াদিল্লি: কলকাতা বিমানবন্দরের রানওয়েতে যে মসজিদ রয়েছে তা অবলম্বে সরিয়ে ফেলতে হবে। এমই দাবি করলেন বাংলাদেশের নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন।

লেখিকা তসলিমা নাসরিন দাবি করেছেন যে কলকাতা বিমানবন্দরের রানওয়ের মাঝে মসজিদ থাকার কারণে বিমান ওড়ার ক্ষেত্রে এবং অবতারণের ক্ষেত্রে সমস্যা হয়। সেই কারণে পুলিশের উচিত তা দ্রুত সরিয়ে দেওয়া।

আরও পড়ুন- ইসলামের এই বিষয়টিই পছন্দ তসলিমার

- Advertisement -

বিষয়টির সূত্রপাত কলকাতার অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টসের সামনে থেকে দেবতা স্বরূপ সিঁদুর লাগানো পাথর সরিয়ে ফেলা নিয়ে। দিন কয়েক আগে অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টস চত্বরে একটি গাছের নিচে পাথরে সিঁদুর লাগিয়ে সেখানে পূজার্চনা শুরু হয়ে যায়। অনেকেই যার তীব্র প্রতিবাদ করে। পুলিশ পরে সেই পাথর সরিয়ে দেয়।

সেই বিষয়টিকে হাতিয়ার করেই বিমানবন্দরের রানওয়ের মাঝে থাকা মসজিদ সরিয়ে ফেলার দাবি করেছেন তসলিমা নাসরিন। এই নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ট্যুইট করেন লেখিকা। তিনি লেখেন, “কিছু মানুষ কয়েকটি পাথরের টুকরোর মধ্যে সিঁদুর মাখিয়ে তা অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টসের সামনের গাছের তলায় রেখেছিল। তাদের উদ্দেশ্য ছিল সেখানে একটা মন্দির নির্মাণ। পুলিশ সেই পাথরের টুকরোগুলো সরিয়ে দেয়। কলকাতা বিমানবন্দরের রানওয়ের মাঝে যে মসজিদ রয়েছে পুলিশের সেটাও সরিয়ে দেওয়া উচিত। ওই মসজিদের কারণে বিমান উড়তে এবং অবতরণের ক্ষেত্রে সমস্যা হয়।”

রানওয়ের মাঝে মসজিদ থাকার কারণে আরও অনেক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে বলেও দাবি করেছেন লজ্জার লেখিকা তসলিমা। রানওয়ের মাঝে মসজিদ কেন নির্মাণ করা হয়েছে? কমেন্টে এসেছিল এই প্রশ্ন। জবাবে তসলিমা লেখেন, “খুব সম্ভবত ওই মসজিদ যখন নির্মাণ করা হয় তখন বিমানবন্দর অনেক ছোট ছিল। কিন্তু পরে বিমানবন্দরের বহর বৃদ্ধি হয়েছে। মুসলিমরা ওই মসজিদ সরিয়ে ফেলার বিরোধী। ওই মসজিদের কারণে দ্বিতীয় রানওয়ে নির্মাণ করা যাচ্ছে না।”

Advertisement ---
---
-----