রানিগঞ্জ: ভয় নিয়েই উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় বসলেন পড়ুয়ারা

স্টাফ রিপোর্টার: দুঃস্বপ্নের রাত পার হয়েছে৷ তবে স্বস্তি ফেরেনি৷ থমথমে পরিস্থিতি৷ একরাশ ভয় নিয়েই রানিগঞ্জবাসী নিজের সন্তানদের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পাঠালেন৷

প্রশাসনের তরফে বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ তবু মন মানে না বাবা মায়ের৷ যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল তা দূরবর্তী কোন অতীতেও ঘটেছে কিনা মনে করতে পারছেন না কেউ৷
সবমিলে কয়লাকুঠির শহর চেনা ছন্দে ফেরার আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে৷

একটি ধর্মীয় মিছিল ও উৎসবকে ঘিরে পশ্চিম বর্ধমান জেলার রানিগঞ্জে যে গোষ্ঠী সংঘর্ষ ও পুলিশের উপর হামলা হয়৷ তার রেশ বইছে জনমনে৷ রাতভর কোনও বাড়িতে আগুন জ্বলতে দেখা গিয়েছে৷ আগুন নেভাতে রাতভর তৎপর ছিল দমকল ও পুলিশ৷ ভোররাতে সেই আগুন নিভেছে৷ রাতভর উদ্বিগ্ন পরিস্থিতি নিয়েই পরীক্ষার শেষ মুহূর্তের পড়া চালিয়েছে পড়ুয়ারা৷ সকাল হতেই বিভিন্ন স্কুলের সামনে বিশেষ পুলিশি পাহারার ব্যবস্থা করা হয়৷

অভিযোগ, যেভাবে পরিকল্পিত উপায়ে সংঘর্ষ ছড়ানো হয়েছে তাতে জড়িত অনেক রাঘববোয়াল৷ কিন্তু তারা প্রশাসনের নাগালের বাইরে৷ সোমবার রানিগঞ্জের এই গোষ্ঠী সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে এক জনের। সংঘর্ষের মাঝে বোমার আঘাতে গুরুতর জখম হন আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেটের ডিসি (সদর) অরিন্দম দত্তচৌধুরী সহ অন্যান্য পুলিশ অফিসাররা৷

রানিগঞ্জের আতঙ্ক ছড়িয়েছে শিল্পশহর দুর্গাপুরেও। পানাগড় সহ বিভিন্ন এলাকায় আছে বিশেষ পাহারা। তবে সর্বত্র নির্বিঘ্নে চলছে পরীক্ষা।

---- -----