স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: আগামী পয়লা অক্টোবর মহরমের দিন দুর্গা প্রতিমা ভাসান সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে হাওড়া শহরে। দশমীর দিন ৩০ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত প্রতিমা নিরঞ্জন চলবে। এরপর ২,৩ ও ৪ অক্টোবর পরপর তিনদিন ঠাকুর ভাসান করা যাবে। সরকারি গাইড লাইন মেনেই মহরমের দিন নিরঞ্জন সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে। মঙ্গলবার বিকেলে হাওড়ার শরৎ সদনে আয়োজিত এক সমন্বয় সভায় হাওড়া সিটি পুলিশের তরফ থেকে এই ঘোষণা করা হয়।

শারদোৎসব ২০১৭ উপলক্ষে আজ পুলিশের তরফ থেকে হাওড়ার পুজো কমিটিগুলির সঙ্গে ওই বৈঠকের আয়োজন করা হয়। সেখানেই পুলিশের তরফ থেকে ঠাকুর ভাসানের দিনক্ষণ ঘোষণা করা হয়। এছাড়াও এবারের পুজোয় বেশ কিছু গাইড লাইন এদিন ঘোষণা করা হয়েছে। পুজোমণ্ডপে এবারও প্রবেশ পথের তুলনায় বাহির পথ দেড়গুণ বড় রাখতে বলা হয়েছে। মণ্ডপে পর্যাপ্ত আলোর পাশাপাশি বড় পুজোর ক্ষেত্রে সিসিটিভি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এছাড়াও পুজোর সময় ২৪ ঘণ্টা সিকিউরিটি গার্ড ও স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ রাখতে বলা হয়েছে। হাইকোর্টের নিয়ম অনুযায়ী ভাসানের সময় ডিজে সিস্টেম পুরোপুরি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এবার পুজোর সময় যেহেতু প্রাকৃতিক দুর্যোগের সম্ভাবনা থাকছে তাই বিপদ এড়াতে ওভারহেড গেট নিষেধ করা হয়েছে।

Advertisement

শুধুমাত্র ‘এল’ আকৃতির গেট ব্যবহার করা যাবে। নিরাপত্তার কারণে এবার হাওড়া সিটি পুলিশ এলাকায় ৪৮টি পুলিশ সহায়ক বুথ থাকছে। আগামী ৯ সেপ্টেম্বর পুলিশের তরফ থেকে প্রথম হাওড়ার বিভিন্ন পুজোমণ্ডপে পরিদর্শন করা হবে। এরপর চূড়ান্ত পরিদর্শন হবে ১৯ সেপ্টেম্বর। সমস্ত ক্লাব গাইড লাইন মেনে পুজো করছে কিনা তা দেখা হবে। ২২ তারিখে পুজো গাইড ম্যাপ প্রকাশ করা হবে। এদিনের সমন্বয় সভায় সিইএসসি, দমকল, দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের আধিকারিকরাও উপস্থিত ছিলেন। হাওড়ায় যে ৭০৮টি অনুমোদিত পুজো কমিটি আছে তাদের প্রতিনিধিরা সহ বেলুড় মঠের স্বামী ত্যাগীবরানন্দ মহারাজ, মন্ত্রী অরূপ রায়, লক্ষ্মীরতন শুক্লা, সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, মেয়র রথীন চক্রবর্তী, জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তী, বিধায়ক জটু লাহিড়ী, বৈশালী ডালমিয়া, পুলিশ কমিশনার ডিপি সিং প্রমুখ এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন।

----
--