মাঝেরহাট কাণ্ডে পূর্ত দফতরের পুরনো অফিসারদের বিরুদ্ধে তদন্ত করবে রাজ্য

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: এক বছরের মধ্যেই ৫৪ বছরের পুরানো মাঝেরহাট ব্রিজকে ভেঙে ফেলে নতুন ব্রিজ তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়ে বিরোধীদের পালটা চাপে ফেলে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মাঝেরহাট ব্রিজের একটি অংশ ভেঙে পড়ার পর মমতার সরকারের কম সমালোচনা করেনি বাম-বিজেপি-কংগ্রেসের মতো বিরোধীদলগুলি৷

শুক্রবার মুখ্যসচিব মলয় দে’র ঘটনা সম্পর্কিত প্রাথমিক রিপোর্ট পাওয়ার পর মুখ্যমন্ত্রী জানান, মাঝেরহাট ব্রিজের পুরানো অংশ ভেঙে নতুন ব্রিজ বানানো হবে৷ দক্ষিণ ২৪ পরগণা বা দক্ষিণ শহরতলীর মানুষের এতে খুবই অসুবিধা হবে৷ তবে এক বছরের মধ্যেই কাজ শেষ করা হবে৷

আরও পড়ুন: ঝামেলা শুরু দেব-রুক্মিণী সম্পর্কে, ক্ষীর খাচ্ছেন ফ্যানেরা

- Advertisement -

এদিন রাজ্যের পূর্ত দফতরকে একহাত নিয়ে মমতা জানান, পূর্ত দফতরের গাফিলতি তো ছিলই৷ মুখ্যসচিবের রিপোর্টে বলেছেন, ২০১৬ সালে যে অফিসাররা দায়িত্বে ছিলেন, তাঁরা নিজেদের দায়িত্ব এড়িয়ে যেতে পারেন না৷ ওই অফিসারদের বিরুদ্ধে তদন্ত হবে৷ ইতিমধ্যেই ওইসব অফিসারদের ফাইল বাজেয়প্ত করা হয়েছে৷ মেট্রো রেলও ওই ঘটনার জন্য দায়ী৷ ভাইব্রেটর ব্যবহার করার ফলে ব্রিজের ভিত নড়ে যায়৷

মমতা বলেন, ‘‘অনেকেই বলছেন, লিখছেন আমি নাকি মেট্রো কাজ বন্ধ করে দিয়েছি৷ আমি নিজে যেটা শুরু করেছি সেটা বন্ধ করে দেব! কীকরে বললেন এই কথা! মাত্র এক সপ্তাহের জন্য কাজ বন্ধ করেছিলাম৷’’ মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, রেলকে বলেছি ওই জায়গায় একটা ম্যান মেড লেভেল ক্রসিং তৈরি করতে হবে৷ দরকার হলে অর্থ দেবে রাজ্য সরকার৷ কর্মীদের বেতন দেবে রাজ্য সরকার৷ জানি অনেক অর্থের প্রয়োজন৷ কিন্তু করতেই হবে৷’’

আরও পড়ুন: ডেঙ্গু সচেতনতা কর্মসূচী মাধ্যমে পুজো উদ্যোক্তারা জিতে নিতে পারবেন কলকাতা পুরসভার পুরস্কার

মুখ্যমন্ত্রী জানান, রবিবার বিদেশ সফরের উদ্দেশ্যে যাওয়ার আগেই মুখ্যসচিব পুরো পরিকল্পনা করে যাবেন৷ ইতিমধ্যেই, দুটি আলাদা কমিটি গঠণ করেছে রাজ্য সরকার৷ একটি কমিটিতে কলকাতা পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার, রাজ্য পুলিশের ডিজি, রাজ্যের নিরাপত্তা উপদেস্টা সুরজিৎ কর পুরকায়স্থ। আর একটি কমিটিতে রয়েছেন, রাজ্য সরকারের অন্যান্য মন্ত্রীরা৷

আরও পড়ুন: বোর্ড গঠনের আগের দুপুরেই বিস্ফোরণে জখম দুই তৃণমূল কর্মী