নয়াদিল্লি: এডস সহ প্রায় ২৫টি রোগের প্রতিষেধকের লাগাম ছাড়া দাম বৃদ্ধির উপর নিয়ন্ত্রণ করতে চলেছে কেন্দ্র। শুক্রবার এক বিবৃতি দিয়ে একথা জানিয়েছে জাতীয় ঔষধ মূল্য নির্ধারণ কারী সংস্থা বা  NAPPA । বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, “২১০৩ সালে এই বিষয়ে একটি নির্দেশ জারি করা হয়। বেসরকারি প্রতিষেধক প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলির উদ্দেশে সেই নিয়মে বলা হয়, যখন খুশি ইচ্ছে মতো জীবনদায়ী প্রতিষেধকের দাম বাড়ানো যাবে না।

অথচ সেই নিয়মকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে দাম বাড়িয়েই চলেছে সংস্থার মালিকরা। এই কারণেই সেই নির্দেশের কিছু সংশোধন করার কথা ভাবা হয়েছে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী বছরে মাত্র একবার সর্ব্বোচ্চ দামের মাত্র ১০ শতাংশ দাম ই বাড়াতে পারবে ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি।” এর পাশাপাশি নাপার চেয়ারম্যান ভূপেন্দ্র সিং বলেন, ” বর্তমানে বিভিন্ন ওষুধের দাম নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরেই অভিযোগ আসছিল। সেইমতো একটি সমীক্ষা চালানো হয়। তাতে দেখা যায় ৫ থেকে ৪৪ শতাংশ দাম বেশি নিচ্ছে ওষুধ প্রস্তুতকারী একাধিক সংস্থা।

সেই সকল জীবনদায়ী ওষুধের দাম কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গড়ে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত কমানো হবে দাম”। খুব শীঘ্রই নতুন এই নির্দেশ সকল ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থাকে জানিয়ে দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন ওই আধিকারিক। নিয়মের তোয়াকয না করলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। প্রয়োজনে বাতিল করা হতে পারে লাইসেন্সও। দিনের পর এডস বা সুগারের মতো রোগের মাত্রা বাড়ার ফলে ওষুধের চাহিদাও বাড়ছে। এই সুযোগে ইচ্ছেমতো দাম বাড়িয়ে চলেছে একাধিক ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা। এবার নতুন এই নিয়মের বলে সংস্থাগুলির দাম নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল। যদিও একাংশের মতে, এই ধরনের নির্দেশ এর আগেও বেশ কয়েকবার জারি করেছে NAPPA যদিও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। প্রতিষেধক প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি বারবার নির্দেশের তোয়াক্কা না করেই ইচ্ছেমতো দাম বাড়িয়ে যায়। যার ফল ভুগতে হয় সাধারণ মানুষকে।

----
--