জুটমিল কর্মী খুনে অভিযোগের তির স্থানীয় কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: গোষ্ঠী-কোন্দলের জেরে ফের উত্তপ্ত হালিশহর৷ অভিযোগ, তৃণমূল গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে প্রাণ হারাল জুটমিলের তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের সক্রিয় সদস্য৷ মৃতের নাম রাজু বাল্মীকি (৪২)৷

এই খুনের ঘটনায় নাম জড়ায় স্থানীয় হালিশহর পুরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর তারক চৌধুরীর৷ যদিও সূত্রের খবর, বর্তমানে তিনি রাজ্যের বাইরে৷

প্রসঙ্গত, মৃত রাজু বাল্মীকি উত্তর ২৪ পরগনার হাজিনগর জুটমিলের তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের সক্রিয় সদস্য। অভিযোগ, সোমবার রাতে নৈহাটি হাজিনগর জুটমিল লাইনে ছাইগাদা ময়দান সংলগ্ন হনুমান মন্দির এলাকায় ওই জুটমিল কর্মীকে খুন করা হয়৷

- Advertisement -

তাঁকে প্রথমে কুপিয়ে তারপর গুলি করা হয় বলে অভিযোগ৷ পুলিশে খবর দেওয়া হলে তদন্ত শুরু হয়৷ মঙ্গলবার ভোররাতে ওই জুটমিল কর্মীর রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে নৈহাটি থানার পুলিশ। এরপর অভিযোগ ওঠে, হালিশহর পুরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেস কাউন্সিলর তারক চৌধুরী এবং তাঁর সহযোগী প্রদীপ পার্সি, অজয় বাসফোর, মারখান্দা বাসফোর মিলে ষড়যন্ত্র করে৷ তারা সুপারি কিলার ভাড়া করে এই খুনের ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি৷

অন্যদিকে, মৃতের নাবালিকা কন্যার অভিযোগ, ‘‘মাস দু’য়েক আগে তৃণমূল কাউন্সিলর তারক চৌধুরী ঘনিষ্ঠ প্রদীপ পার্সি আমার সঙ্গে অশালীন আচরণ করেছিল৷ সেই সময় আমার সম্মান রক্ষায় রুখে দাঁড়িয়েছিল আমার বাবা। তখন দু’পক্ষের মধ্যে মারপিট হয়। সেই সময় বিষয়টিকে কেন্দ্র করে ব্যাপক শোরগোল বাঁধে৷ দু’মাস আগের পুরনো শত্রুতার জেরেই সোমবার রাতে সুপারি কিলার ভাড়া করে ওরা আমার বাবাকে খুন করে।’’ পাশাপাশি খুনিদের কড়া শাস্তির দাবি জানিয়েছে মৃতের পরিবারের আত্মীয় এবং এলাকাবাসীরা।

এদিকে অভিযুক্ত তৃণমূল কাউন্সিলর তারক চৌধুরী এলাকায় নেই। স্থানীয় সূত্রের খবর, তিনি বর্তমানে ভিন রাজ্যে রয়েছেন। ফলে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ সম্পর্কে তাঁর কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনা। এই ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে ওই এলাকায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নামানো হয় ব়্যাফ৷ ঘটনাস্থলে আসে বিশাল পুলিশবাহিনী। অভিযোগের ভিত্তিতে নৈহাটি থানার পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। যদিও এই ঘটনায় এখনও কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি৷ তবে পুলিশ সূত্রে খবর, সন্দেহভাজনদের খোঁজ চলছে৷ কয়েকজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

Advertisement ---
---
-----