ওয়াশিংটন: বড়দিনের খুশি মলীন হয়েছিল মার্কিনমুলুকে৷ সৌজন্যে শাট ডাউনের জের৷ বেতন মেলেনি প্রায় আট লক্ষ কর্মচারীর৷ সেই ধারা অব্যাহত ট্রাম্পের দেশে৷ সেদেশের ইতিহাসে এত দীর্ঘ সময় ধরে শাট ডাউন এই প্রথম৷ শনিবার আমেরিকা প্রশাসনের শাট ডাউন বাইশ দিনে পড়ল৷ বিপর্যস্ত মার্কিন অর্থনীতি৷ চরম বিপাকে সাধারণ মানুষ৷ তবে সমস্যা কাটানোর চেষ্টা চলছে৷ ফলে আংশিকভাবে খুলেছে সরকারি দফতর৷

এর আগে বিল ক্লিনটন প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন ১৯৯৫-৯৬ সালে আমেরিকা শাট ডাউনের মুখোমুখি হয়েছিল৷ সেবার একটানা ২১ দিন ধরে বন্ধ ছিল বিভিন্ন সরকারি দফতর৷ বেতন মেলেনি সরকারি কর্মীদের৷ তারপর বিভিন্ন সিদ্ধান্ত ঘিরে মার্কিন কংগ্রেস ও সেনেট সদস্যদের সঙ্গে প্রেসিডেন্টের মিল না হওয়ায় শাট ডাউনের কবলে পড়তে হয় আমেরিকাকে৷ কিন্তু তা এত দীর্ঘস্থায়ী ছিল না৷

আরও পড়ুন: গব্বরের মেয়ের কাছে হেরে গেলেন ‘হিটম্যান’

এই পর্যায়ে ঘটনার সূত্রপাত গত বছর ২১শে ডিসেম্বর৷ শরনার্থীদের আটকাতে আমেরিকা–মেক্সিকো সীমান্তে দেওয়াল তোলার উদ্যোগ নেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প৷ এর জন্য পাঁচ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিল পাস করানোর দাবি করেছিলেন প্রেসিডেন্ট মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

কিন্তু কংগ্রেসে ডেমোক্র্যাট এবং রিপাবলিকান সেনেটররা একমত ছিলেন না ট্রাম্পের সঙ্গে। প্রথমে হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভ ও পরে সেনেট মুলতুবি হয়ে যায়। তারপরই ২২শে ডিসেম্বর মধ্যরাত থেকে শাট ডাউন চালু হয় সরকারি দফতরগুলিতে।

আরও পড়ুন: লোকসভা ভোটের আগেই দলবদল করতে চাইছে বিজেপি কর্মীরা: অখিলেশ

শাট ডাউনের প্রাথমিক পর্বে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষে মার্কিন প্রশাসনের প্রায় ৮ লক্ষ কর্মীর উপর এর প্রভাব পড়ে৷ বেতন বন্ধ হয়ে যায় তাদের৷ মেলেনি কোনও সরকারি বরাদ্দ। কার্যত বিনা বেতনেই কাজ করতে হয় তাঁদের। বেতন না দিতে পারার জন্যে ছুটিতে পাঠিয়ে দেওয়া হয় সরকারি কর্মীকে। ফলে সরকারি বিনোদন পার্ক, মিউজিয়াম, লাইব্রেরির মতো পর্যটনকেন্দ্রগুলি কর্মীর অভাবে অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ হয়ে যায়৷

ট্রাম্প অবশ্য স্বভাবসিদ্ধ ঢঙেই শাট ডাউনের দায় নিতে চাননি৷ তিনি দায়ী করেন ডেমোক্র্যাটদের৷ প্রেসিডেন্টের মতে, ডেমোক্র্যাটসদেরই ঠিক করা উচিত তারা কতদিন শাট ডাউন চালাবেন। তবে তিনি এজন্য প্রস্তুত ছিলেন বলে দাবি করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। একটানা শাট ডাউন নিয়ে রাজনৈতিক তরজার মাঝেই অবশ্য বিপাকে মার্কিন প্রশাসনের প্রায় আট লক্ষ কর্মী৷

--
----
--