বিজেপির দ্বারস্থ হতেই টোটো চালকদের জন্য উঠে পড়ে লাগল পুরসভা

স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: সমস্যা মেটানোর আর্জি জানিয়ে টোটো চালকরা বিজেপির দ্বারস্থ হতেই, আজ সকাল থেকেই কোচবিহার শহরের মধ্যে থাকা টোটো চালকদের টেম্পোরারি আইডেন্টিফিকেশন নম্বর দেওয়ার জন্য আবেদন পত্র গ্রহণ করা শুরু করল কোচবিহার পুরসভা৷

রাজনৈতিক মহলের ধারণা, সামনে পঞ্চায়েত নির্বাচন তাই টোটো চালকদের বিজেপিতে যোগদান আটকাতেই তড়িঘড়ি এই উদ্যোগ নিল পুরসভা। বিজেপি এই ঘটনাকে তাঁদের নৈতিক জয় বলে দাবি করলেও পুরসভার দাবি তাঁরা আগেই জানিয়েছিল সকলকে টিন দেওয়া হবে৷

কোচবহার পুর এলাকায় টোটো নিয়ে সমস্যা দেখা দিচ্ছে৷ একদিকে হাই কোর্টের নির্দেশে এই শহরে মাত্র ৪১২টি টোটোকে রেজিস্ট্রেশন দেবার প্রক্রিয়া শুরু করেছে প্রশাসন৷ এর ফলে টোটো চালকদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে৷ কারণ কোচবিহার শহরেই প্রায় ছয় হাজার টোটো চলছে৷ ৪১২ টিকে রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হলে বাকি টোটোদের কী হবে এই প্রশ্ন ছিলই৷ এর জন্যে আইএনটিটিইউসি সমর্থিত টোটো ইউনিয়ন টোটো চালকদের স্বার্থে সঠিক ভাবে আন্দোলন সংগঠিত না করায়, গত কালই ৩০০ বেশির টোটো চালক বিজেপি কার্যালয়ে গিয়ে বৈঠক করে৷

বিজেপি তাঁদের পাশে নিয়ে আন্দোলনের প্রতিশ্রুতি দেয়৷ এই ঘটনার পর নড়েচড়ে বসে কোচবিহার জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব৷ রাতেই কোচবিহার পুরসভা থেকে সকল টোটো চালকদের টিন দেওয়ার জন্য আবেদন পত্র দেওয়া হবে বলে মাইকিং করা হয়৷ সেই মত আজ সকাল থেকে আবেদন পত্র দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে৷ টোটো চালকদের বক্তব্য এর আগেও আবেদন করা হয়েছিল কিন্তু তাঁরা টিন পাননি এবারও তাই হলে পথে নামবেন তারা এবং সেক্ষেত্রে বিজেপিকে সঙ্গে নিয়েই এই আন্দোলন হবে৷

বিজেপির জেলা সভাপতি নিখিল রঞ্জন দে বলেন এটা আমাদের নৈতিক জয়, বিজেপির আন্দোলনের ভয়েই এত দ্রুততার সঙ্গে টিন দেওয়ার কাজ শুরু হল৷ তিনি আরও বলেন “আমরা টোটো চালকদের সঙ্গে আছি, যতদিন না পর্যন্ত শহরের সকল টোটো টিন না পাচ্ছে তাঁদের আন্দোলন চলবে৷ এই বিষয়ে কোচবিহার পুরসভার চেয়ারম্যান ভূষণ সিং বলেন শহরের সকল টোটো চালককে টিন দেওয়া হবে, তাঁর দাবি কোন দলের আন্দোলনের চাপে নয় পুরসভা এই বিষয়ে আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তবে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে এই ভাবে রাজনীতির জন্য সব টোটোকে স্বীকৃতি দিয়ে কোচবিহারের শহরের যানজটের সমস্যা কি মিটবে?