টলিউড সেলেবদের বেস্টফ্রেন্ডদের চিনে নিন

কলকাতা: বন্ধু শব্দটা খুবই দামি। একজন মানুষের জীবনে যেমন প্রত্যেকটা সম্পর্কের দাম আছে সেরকমই বন্ধুত্বের জায়গাটাও আলাদা করে রাখা দরকার। সেরকমই টলিউডে সেলেবদের জীবনেও রয়েছে তাঁদের প্রিয় বন্ধুরা। এক ঝলকে দেখে নিন তাঁদের বেস্ট ফ্রেন্ড দের।

অভিনেত্রী নুসরত জাহান এবং তাঁর বন্ধু স্বরাজ পারেখ এবং পূজা প্রসাদ, একে অপরের স্কুল জীবনের বন্ধু। দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে রয়েছে তাঁদের ফ্রেন্ডশিপ। নুসরতের কথায় স্কুল লাইফে তিনি খুবই দুষ্টু ছিলেন। প্রত্যেকটা দিন তিনি তাঁর কমার্স বই নিয়ে যেতে ভুলে যেতেন। একবার টিচার তাঁকে শাস্তি দিয়েছিলেন,শাস্তি টা হল তাঁকে ১০০ বার লিখতে হবে তিনি কখনই এই বই আনতে ভুলবেন না। কিন্তু নুসরত এমন কথা লিখতে চান নি। শাস্তি কমাতে তাঁর বন্ধু স্বরাজ তাঁর হয়ে এটি লিখে দেয় সেই থেকে তাঁরা বেস্ট ফ্রেন্ড। তাঁরা যে ক্রাইম পার্টনার সেকথাও শিকার করেছেন নুসরত।

সঙ্গীত শিল্পী অনুপম রায়ের দুজন ভালো বন্ধু রয়েছেন। একজন সূর্য প্রতিম মুখোপাধ্যায়, এবং অপরজন বিমান চট্টোপাধ্যায়। সূর্য অনুপমের স্কুল জীবনের বন্ধু। ক্লাস ওয়ান থেকে তাঁরা একে অপরকে চেনেন। একসঙ্গে বেঙ্গালুরুতে গান গাইতেন বহু ভালো মুহূর্ত কাটিয়েছেন তাঁরা। অন্যদিকে বিমান হল অনুপমের কলেজ জীবনের বন্ধু। বিমান অবশ্য অনুপমের থেকে বড়। তবে তাঁরা একসঙ্গে বেঙ্গালুরুতে রুমমেট হিসাবে ছিলেন। বহু ভালো সময় একসঙ্গে কাটিয়েছেন তাঁরা।

পরিচালক বিরসা দাসগুপ্ত এর বেস্ট ফ্রেন্ড হল শুভাঞ্জন মিত্র। একসঙ্গে বেড়ে ওঠা তাঁদের টাও আবার একই পাড়াতে। বিরসার কয়েকটা বাড়ির পরেই তাঁর বন্ধুর বাড়ি। সুতরাং বুঝতেই পারছেন পাড়ার বন্ধু যেমন হয় সেরকমই ফ্রেন্ডশিপ রয়েছে তাঁদের মধ্যে।

অভিনেত্রী পার্নো মিত্র এবং সাবা হোসেন স্কুল লাইফের ফ্রেন্ড। যখন তাঁরা ক্লাস এইট এ পড়ে তখন ফ্রেন্ডশিপ হয় তাঁদের মধ্যে। এখন দুজনেই ব্যাস্ত থাকেন তাঁদের কাজে। কিন্তু নিয়মিত বন্ধুর সঙ্গে দেখা সাক্ষাৎ করতে ভোলেন না পার্নো।

অভিনেতা যীশু সেনগুপ্ত এর বেস্ট ফ্রেন্ড দুজন। অভিষেক সেনগুপ্ত, এবং নীরাজ লোধিয়া। দুজনেই অভিনেতার থেকে বড়। একই জায়গায় বড় হয়ে ওঠা তাঁদের। আর এই কারণেই তাঁরা একে অপরের বাড়িতে যাতায়াত করতেন। সেই থেকেই তাঁদের মধ্যে খুবই স্ট্রং বন্ধুত্ব হয়। আর সেই বন্ধুত্ব রয়েছে এখনও পর্যন্ত। কিছুদিন আগেই পাটায়া গেছিলেন একসঙ্গে।

Advertisement
----
-----