মমতাই যোগ্য জাতীয় নেতা: শত্রুঘ্ন সিনহা

নয়াদিল্লি: শনিবার ১৯শের ব্রিগেড৷ তাতে যোগ দেবেন বিজেপি বিরোধী সব রাজনৈতিক দলের প্রথম সারির নেতারা৷ তার আগেই তৃণমূল সুপ্রিমোর প্রধানমন্ত্রী হওয়ার বিষয়টি ফের উস্কে দিলেন মোদী বিরোধী বিজেপি নেতা শত্রুঘ্ন সিনহা৷ বিহারের পাটনা সাহিবের সাংসদের মন্তব্য, ‘‘প্রধানমন্ত্রী হওয়ার অন্যতম যোগ্য ব্যক্তিত্ব মমতা৷ তিনি আর আঞ্চলিক নেত্রী নন, জাতীয় স্তরের রাজনীতিতে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রেও অত্যন্ত যোগ্য তিনি৷’’

আরও পড়ুন: ত্রিপুরা-বাংলাদেশ বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়নে জোর বিপ্লব দেবের

মায়াবতী-অখিলেশ জোট বেঁধেছেন উত্তরপ্রদেশে৷ টিআরএস, বিজেডি বলেই দিয়েছে কংগ্রেস-বিজেপির থেকে সমদূরত্ব বজায় রাখবে৷ এই অবস্থায় বিরোধী জোটের ভবিষ্যৎ কী? কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? প্রশ্ন রাজনৈতিক মহলের৷ সেই সময়ই ‘বিহারী বাবু’র মন্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যবাহী বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা৷

- Advertisement -

 

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার যোগ্যতা রয়েছে তৃণমূল সুপ্রিমোর৷ আগেই বলেছিলেন বিজেপির বহিষ্কৃত নেতা ও বাজপেয়ী আমলের বিদেশমন্ত্রী যশবন্ত সিনহা৷ কানিকটা সেই সুরই শোনা যায় রাজ্যের প্রাক্তুন দুই রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধী ও এনকে নারায়নাণের গলাতেও৷ এবার তারই প্রতিধ্বনি সোনা গেল বিজেপি সাংসদ শত্রুঘ্ন সিনহার গলাতেও৷

‘২০১৯- বিজেপি ফিনিশ’৷ ডাক দিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেই লক্ষ্যেই গেরুয়া দল বিরোধী সব রাজনৈতিক দলকে ঐক্যবদ্ধ করে ১৯শের লোকসভা ভোটে লড়াইয়ের ডাক দিয়েছেন তিনি৷ বিরোধী জোট গড়ারও অন্যতম কারিগরও বাংলার মুখ্যমন্ত্রী৷ বিজেপি বধে শনিবার বিদোধী রাজনৈতিক দলের নেতাদের এনে ব্রিগেড সমাবেশ করথে তৃণমূল৷ এই সভার অন্যতম বক্তা শত্রুঘ্ন৷ গেরুয়া শিবিরের মোদী বিরোধী নেতাকে সভায় হাজির করিয়ে চমকের অপেক্ষায় জোড়া ফুল শিবির৷

ব্রিগেডের সভায় যোগ দেবার আগে প্রধানমন্ত্রীত্বের প্রশ্নে বিহারের সাংসদের মন্তব্য, ‘‘ভোটের পর মানুষের রায় পেলে বিরোধী শিবিরের সব দল বসে প্রধানমন্ত্রী ঠিক করবে৷ কিন্তু বলাই যায় প্রধানমন্ত্রী হওয়ার অত্যন্ত যোগ্য বেক্তিত্ব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর নেতৃত্ব শুধু আঞ্চলিক স্তরেই সীমাবদ্ধ নেই, এখন তিনি জাতীয়স্তরেও প্রথম সারির নেত্রী৷’’

আরও পড়ুন: ওবিসিদের স্বার্থে ফেব্রুয়ারিতে দিল্লিতে মহাসম্মেলন রাহুল গান্ধীর

অনেকেই মনে করছেন, টিআরএস নেতা কে চন্দ্রশেখর রাও রাহুল গান্ধীর প্রধানমন্ত্রীত্বের বিরোধী৷ এনডিএ-ইউপিএ থেকে সমদূত্বের অবস্থান নিয়েছেন ওড়িশ্যার নবীন পট্টনায়েক৷ তেলেঙ্গানা বা ওড়িশ্যায় রাজ্যের এই দুই শাসক দলই ভালো ফল করবে বলে আশা৷ প্রয়োজনে মোদী বিরোধী সরকার গঠনে তাদের সাহায্যও নেওয়া যেতে পারে৷ তারা আগেই জানিয়েছে এক্ষেত্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাদের কাছে গ্রহণযোগ্য৷ তাই ভবিষ্যৎ রাজনৈতির সমীকরণের অঙ্কেই ‘বিহারী বাবু’র এই মন্ত্বব্য৷ এই পরিস্থিতিতে নজরে শনিবারের মেগা ব্রিগেড৷