অ্যাপেলের ‘হিজাব’ইমোজির পিছনে থাকা মেয়েটি আসলে কে জানেন?

ক্যালিফোর্নিয়া: স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা ইমোজির সঙ্গে কমবেশি সকলেই পরিচিত৷ গত সোমবারই ছিল এই বিশেষ ইমোজি পালনের দিন৷ আর এই বিশেষ দিনটিতেই অ্যাপেল সংস্থা একটি বিশেষ ইমোজির উদ্বোধন করে৷ হিজাব পরিহিত একটি মেয়ের ইমোজির সূচনা করে অ্যাপেল সংস্থা৷ কিন্তু আপনি কি জানেন এই বিশেষ ইমোজির পিছনে যে মেয়েটি রয়েছে সে কে? কেন হঠাৎ এই ধরনের একটি ইমোজি তৈরি করল অ্যাপেল?

আরও পড়ুন: জানেন কি ‘অ্যাপেল সিরি’পুরুষ না মহিলা?

রেয়আউফ আলহুমেধি৷ ভিয়েনার বাসিন্দা রেয়আউফের বয়স মাত্র ১৬৷ বন্ধুরা রেয়আউফ এবং তাদের বন্ধু বান্ধবেরা নিজেদের মধ্যে গল্প করার জন্য হোয়াটসঅ্যাপে একটি গ্রুপ তৈরি করে৷ সেই গ্রুপেই তারা ঠিক করে কোনও নাম নয়৷ এক একটি ইমোজিই হবে তাদের পরিচয়৷ এই ভাবে তারা শুরু করে কথাবার্তা৷ সেই গ্রুপেরই একজন সদস্য ছিলেন রেয়আউফ৷ সে আচমকা বুঝতে পারে, যে তার বন্ধুরা নিজেদের মতন একটা ইমোজি পেয়ে গেলেও তার মতন দেখতে কোনও ইমোজি তাঁর অ্যাপেলের স্মার্টফোনটিতে নেই৷ কিন্তু এদিকে নিজের মনের মতন ইমোজি না পেয়ে সে ভাবতে থাকে কি করা যায়৷ সেই সময়ই তাঁর মাথায় আসে যে তাঁর মতন দেখতে একটি ইমোজি যদি বানানো যায়, তবে তা কেমন হবে? যেমন ভাবা অমনি কাজ৷ সে সঙ্গে সঙ্গে তাঁর সেই ইচ্ছের কথা ইউনিকোড ইমোজি সাবকমিটিতে জানায়৷ সেই কমিটির প্রধান জেনিফার লি সঙ্গে সঙ্গে তাঁর সেই ইচ্ছেপূরণে রাজি হয়ে যায়৷ রেডিট সংস্থার সহ প্রতিষ্ঠাতা অ্যালেক্সিস ওহ্যানিয়ানও তাঁর এই ইচ্ছের সমর্থন জানায়৷ অবশেষে গত সোমবার অফিসিয়ালি এই ইমোজিটি তৈরি করে অ্যাপেল সংস্থাটি৷

অারও পড়ুন: এবার ফোন নয় ডায়াবেটিসের জন্যে কাজ করছে অ্যাপেল

তবে, এই বিশেষ ইমোজিটি তৈরির পরই নানাবিধ সমস্যার সমালোচনার সম্মুখীন হয় অ্যাপেল সংস্থাটি৷ কেউ কেউ জানিয়েছে এই বিশেষ ইমোজোটি তৈরি নিষ্প্রোয়জন ছিল৷ আবার কেউ জানিয়েছেন, হিজাব নারীজাতিকে অত্যাচার, সমাজে তাদেরকে দমন করে রাখার প্রতীক৷ অ্যাপেল সংস্থাটি এই ধরনের একটি ইমোজি তৈরি করে নারী নির্যাতনের বিষয়টিকেই সমর্থন জানালো৷ এহেন আরও একাধিক বিষয় নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে ট্যুইটারে৷

Advertisement
---
-----