টিটাগড় ওয়াগন কারখানা জাহাজ তুলে দিল নৌবাহিনীকে

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: এই প্রথম তেল সরবরাহকারী অত্যাধুনিক জাহাজ নির্মাণ করল উত্তর ২৪ পরগনার টিটাগড় ওয়াগন কারখানা৷ বৃহস্পতিবার ওই জাহাজটি তুলে দেওয়া হয় ভারতীয় নৌ সেনার হাতে৷ এদিনই সেটিকে টিটাগড় ওয়াগন কারখানা সংলগ্ন গঙ্গায় ভাসানো হল৷

২০১৭ সালে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বারাকপুরের প্রশাসনিক বৈঠকে টিটাগড় ওয়াগান লিমিটেডের প্রস্তাবিত জাহাজ প্রকল্পের রাস্তায় সমস্যা নিয়ে ধমক দিয়েছিলেন প্রশাসনের কর্তাদের৷ এরপর সেই সমস্যার সমাধানে উদ্যোগী হয় টিটাগড় পুরসভা ও স্থানীয় প্রশাসন৷ উদ্যোগ নেয় পুলিশও৷

দিন কয়েকের মধ্যে জট কেটে শুরু হয় জাহাজ কারখানার পথ চলা৷ প্রথম ধাপেই নৌ বাহিনীর একটি তেল বহনকারী জাহাজের বরাত পায় সংস্থাটি৷ কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে আঠেরো মাস সময় সীমা দেওয়া হয় সংস্থাকে৷ কিন্তু সেই নির্দিষ্ট সময় সীমার দুমাস আগেই নৌ বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হল নবনির্মিত এক হাজার লিটার তেল বহনকারী জাহাজ৷ যা তৈরিতে ৩৫ কোটি টাকা খরচ হয়৷ অত্যাধুনিক এই জাহাজটি বিমান বহনকারী জাহাজ আইএনএস বিক্রমাদিত্যকে তেল সরবরাহের কাজ করবে বলে ভারতীয় নৌসেনা সূত্রে জানা গিয়েছে৷

- Advertisement -

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বৃহস্পতিবার উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় নৌবাহিনীর ভাইস অ্যাডমিরল এমএস পাওয়ার, টিটাগড় ওয়াগান লিমিটেড কারখানার কর্ণধার জেপি চৌধুরী, বারাকপুরের সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদী, প্রাক্তন সাংসদ তড়িৎ তোপদার, ব্যারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত, টিটাগড় ও বারাকপুর পুরসভার দুই পুরপ্রধান প্রশান্ত চৌধুরী ও উত্তম দাস সহ নৌবাহিনীর উচ্চপদস্থ অন্যান্য আধিকারিকরা।

নৌবাহিনীর ভাইস অ্যাডমিরল এমএস পাওয়ার জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে তেল বহনকারী এই জাহাজটি বৃহত্তম নৌ বাহিনীর হাতে এল৷ এটি বড় জাহাজগুলির কাজের ক্ষেত্রে অনেকটাই সহযোগিতা করবে৷

টিটাগড় ওয়াগান লিমিটেড কর্ণধার জেপি চৌধুরী বলেন, ‘‘আমরা এই জাহাজ তৈরির কাজ যখন হাতে নিয়েছিলাম, তখন অনেকে আমাদের উপর হেসেছিল৷ বলেছিল কাজটি আমরা সময় মতো শেষ করতে পারব না৷ কিন্তু আমাদের কর্মীদের পরিশ্রমের ফলে আমরা সময়ের আগেই কাজ শেষ করে নজির করেছি৷ এরপরও এনআইওটির আরও দুটো জাহাজ আমাদের হাতে তৈরি হচ্ছে৷ তাও আমরা সময়ের আগে তৈরি করে দিতে পারব বলে আশা করি এবং এই কর্মসংস্কৃতি দেখে আরও অনেকে এই রাজ্য শিল্প করতে এগিয়ে আসবে৷’’

Advertisement
---