প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর প্রয়াণে শোক জ্ঞাপন রাষ্ট্রসঙ্ঘের

রাষ্ট্রসঙ্ঘ: বৃহস্পতিবার বিকেল ৫.০৫ মিনিটে দিল্লির এইমসে প্রয়াত হন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী। তাঁর দেহ নিয়ে আসা হয় দিল্লির বাসভবনে। রাতে সেখানেই ছিল অটলজীর দেহ। শুক্রবার সকালে সেখানেও ছিল সাধারণের জন্য শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের ব্যবস্থা।

শুধু সাধারণ মানুষ নয়, দেশের তাবড় নেতারা একবার শেষ দেখা করে গিয়েছেন তাঁদের প্রিয় অটলজীর সঙ্গে৷ একের পর এক শোকবার্তা এসেছে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়কদের কাছ থেকে৷ গোটা বিশ্ব শোকাহত প্রাকা্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর চলে যাওয়া ঘিরে৷

শোকবার্তা এসেছে রাষ্ট্রসঙ্ঘ থেকেও৷ শোকবার্তায় রাষ্ট্রসঙ্ঘ জানিয়েছে একজন সৎ রাজনীতিকের চলে যাওয়ায় মর্মাহত৷ সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক কাঠামো কায়েম করতে সক্ষম হয়েছিলেন তিনি৷ বৈচিত্রের মধ্যেও ঐক্যের বার্তা দিতে পেরেছিলেন অটলজি৷

- Advertisement -

১৯৭৭ সাল৷ ভারতীয় রাজনীতিতে একটা মোড় এনে দিয়েছিল৷ স্বাধীন ভারতে প্রথমবার শাসক কংগ্রেস মুখ থুবড়ে পড়ল৷ হারতে হল ইন্দিরার দলকে৷ প্রধানমন্ত্রী হলেন মোরারজি দেশাই৷ আর তাঁর সরকারের বিদেশমন্ত্রী হলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী৷

সেই সরকারের স্থায়িত্ব অবশ্য বেশিদিন হয়নি৷ মাত্র দু’বছর৷ কিন্তু তার মধ্যেই তিনি নিজেকে প্রমাণ করেছিলেন ওই টুকু সময়ের মধ্যেই৷ সেই সময় তাঁকে পাঠানো হয়েছিল ইউনাইটেড নেশনস জেনারেল অ্যাসেম্বলিতে৷ তিনিই ছিলেন প্রথম ভারতীয় যিনি ওই অধিবেশনে যোগদান করতে গিয়েছিলেন৷

তিনি সেই অধিবেশনে হিন্দিতে ভাষণ দিয়ে তিনি সকলকে চমকে দিয়েছিলেন৷ এর পর আরও একবার রাষ্ট্রসংঘে ভাষণ দিতে গিয়েছিলেন৷ সেখানে দাঁড়িয়ে পাকিস্তানের তোলা একাধিক অভিযোগের জবাব দিয়েছিলেন৷

Advertisement
---